রাশিয়ার এস ৪০০ এর সাথে এই এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম রাখলে ভারতের আকাশ হয়ে উঠবে দুর্ভেদ্য

নিউজ ডেস্কঃ রাশিয়ার যুদ্ধাস্ত্রের সবথেকে বড় ক্রেতা হল ভারতবর্ষ। দেশের স্বাধীনের পর রাশিয়া থেকেই ভারত ৭০ শতাংশের উপর সমরাস্ত্র ক্রয় করত। তবে আসতে আসতে কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে এখন ফ্রান্স, ইসরায়েলের পাশাপাশি আমেরিকার থেকেও যুদ্ধাস্ত্র ক্রয় করা শুরু করেছে ভারতবর্ষ। আর সেই কারনে কিছুটা হলেও চাপ বেড়েছে রাশিয়ার।

ভারত রাশিয়া থেকে pantsir এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম ক্রয় করতে পারে। রাশিনা বিশেষজ্ঞদের মতে pantsir s1 সিস্টেম হাই মোবিলিটি আর ভার্সিলিটি জন্য ভারতের বায়ু সুরক্ষা ব্যাবস্থা মজবুত করতে পারবে। এটি এস 400 এর সঙ্গে নেটওয়ার্ক করলে এক ড্রাগনেট তৈরী হতে পারে যাকে শত্রুর হাত থেকে ভারতবর্ষের আকাশকে করে তুলবে অভেদ্য।

রাশিয়ান বিশেষজ্ঞদের মতে সিরিয়ান অপারেশন সময় pantsir s1 সিস্টেম যে ভুল ভ্রান্তি সীমাবদ্ধতা নজরে এসেছে তা তারা আসতে আসতে ঠিক করছে। পাশাপাশি ভারত কে সিস্টেম বিক্রি করা হবেতা অনেক উন্নত হবে। ভারতের ভু প্ৰকৃতি ও চাহিদা অনুযায়ী রাশিয়া এই সিস্টেম কে মডিফাই ও করে দেবে। তবে কিছু সিস্টেম অংশ ভারতে টেক শেয়ার করে যৌথ উদ্যোগে বানানোর কথা বলা হয়েছে। কিন্তু মিসাইল ও গুরুত্বপূর্ণ রাডার ও সেন্সর টেক শেয়ার ব্যাপারে তারা চুপ।

রাশিয়ান সমর বিশারদরা জানিয়েছিলেন যে যে তুর্কির bayractar tv2 ড্রোন সিস্টেম বিরুদ্ধে pantsir অকৃতকার্য হয়েছে। তবে এখানে উল্লেখযোগ্য যে রাশিয়ান ভার্শন pantsir ও এক্সপোর্ট ভার্শন pantsir যাকে zrpk বলে গুরুতর পার্থক্য রয়েছে। প্রথমটি তিন লেয়ার টার্গেট সিস্টেম ও ফেসড আরে রাডার সিস্টেম আছে, দ্বিতীয় টিতে খালি অপটিক্যাল সেন্সর।

গুরুত্বপূর্ণ রাডার সাপোর্ট না থাকার কারণে তুর্কির ড্রোন গুলি রাশিয়ান ভাষায় জেনোসাইড করেছে রাশিয়ান pantsir গুলোকে 4 কিমি দূর থেকে। তার  কারণ হল সেই সিস্টেম গুলিতে দূরপাল্লার রাডার সাপোর্ট সিস্টেম ছিল না। রাশিয়ান বিশেষজ্ঞদের মতে বর্তমানে ভারত চীন উত্তেজনা কারণে রাশিয়া এই সিস্টেম লাদাখ অঞ্চলে ভারতের এসেট কে চীনা বায়ুসেনার হামলা থেকে রক্ষা করতে সক্ষম হবে। তবে ভারতের মতে কোরিয়ান k 30 biho সিস্টেম অনেক কার্যকর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *