আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে ‘ঝারক’

অনীক চৌধুরী পরিচালিত, টিউবলাইট এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজিত পূর্ণ দৈর্ঘ্যের ছবি ‘ঝারক’ মেলবোর্ন শহরের ভারতীয় চলচ্চিত্র উৎসবে এবং বোস্টন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে নির্বাচিত হওয়ারপাশাপাশি এবার ২০ তম ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে ছবির আধ্যাত্মিক বিভাগে নির্বাচিত হলো।।

এর আগে অনীক চৌধুরীর বিভিন্ন ছবি সম্মানীয় আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের মঞ্চে সম্মানিত হয়েছে।। কান, মেলবোর্ন, ভিয়েনা, রোম প্রভৃতি চলচ্চিত্র উৎসবে দেখানো হয়েছে তার ছবি। ‘দ্য ওয়াইফ’স লেটার’, ‘ক্যাকটাস’, ‘হোয়াইট’, ‘কাট্টি নৃত্যম’ প্রভৃতি ছবির মধ্যে দিয়ে আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে বারংবার সন্মানিত হয়েছেন অনীক।

‘ঝারক ছবির মধ্যে দিয়ে পলাতক মনের প্রয়োজনীয়তা ও পলাতক মনের ইচ্ছার মধ্যে পার্থক্য তুলে ধরেছেন অনীক।

ছবিটি ৮ বছর আগের আয়লা পরিস্থিতির মধ্যে সুন্দরবন অঞ্চলের মানুষদের কথা বলে। ছবিতে ঝড় পরবর্তী সময়ে কিছু মানুষের জীবন সংগ্রামের কথা তুলে ধরা হয়েছে।

ছবিতে অভিনয় করেছেন ঊষা ব্যানার্জী, হুসনে সবনম, ঈপ্সিতা কুন্ডু, সবুজ বর্ধন প্রমুখ।। ছবির পরিচালনার পাশাপাশি কাহিনী ও চিত্রনাট্য লিখেছেন অনীক স্বয়ং, ছবির প্রযোজনায় প্রযোজনা সংস্থা টিউবলাইট এন্টারটেইনমেন্ট এর তরফে রয়েছেন অনীক চৌধুরী, সঞ্জীব হোর ও সুজয় বসু । ছবির সংগীত পরিচালনার দায়িত্ব সামলেছেন ফ্যাবিও আনস্তেসি, ক্যামেরার দায়িত্বে ছিলেন পরিচালক নিজে ও সৌম্য বারিক।। ছবির সম্পাদনার দায়িত্বেও রয়েছেন পরিচালক নিজেই।

‘ঝারক’ ছবির আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে এই দিগ্বিজয় বিষয়ে পরিচালক জানালেন, “বিগত তিন বছর ধরে ধীরে ধীরে এই ছবির কাজ করেছি আমি।। প্রথমে ছবিটি একটি তথ্য চিত্র হিসেবে পরিবেশন করার পরিকল্পনা করেছিলাম আমরা।। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে জীবন থেকে পালিয়ে বাঁচার বিষয় টা আমায় খুব ভাবিয়ে তুলেছিল। যদিও আমি নিজে পালিয়ে বাঁচায় বিশ্বাসী না, কিন্তু মানুষের এই বোধ আমায় খুবই আকৃষ্ট করেছে। সুন্দরবন অঞ্চলের দ্বীপ অধ্যুষিত অঞ্চলের মানুষদের নিয়ে কাজ করতে গিয়ে দেখি তারা দ্বীপাঞ্চল এর সমস্যা এড়িয়ে যাওয়ার জন্য শহরের দিকে পালিয়ে আসছেন।।আমাদের শহরের মানুষেরও এমন পলাতক মানসিকতা থাকে।। সেই ভাবনা থেকেই এই ছবি উৎপত্তি।। ছবিটি একটি নির্বাক ছবি। আমরা যখন বিদেশি কোনো ছবি দেখি তখন ভাষার সমস্যার কারণে আমাদের মনোযোগ সব সময় চলে যায় সাব টাইটেলের দিকে।। সেই সমস্যা যাতে না হয় তাই এই ছবিকে নির্বাক ছবি হিসেবে পরিবেশনা করা।। মেলবোর্ন ভারতীয় চলচ্চিত্র উৎসবের পর এবার ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে নির্বাচিত আমার ছবি। ছবির পুরো টিমের জন্য এই নির্বাচনের খবর একটা উদযাপনের মুহূর্ত এনে দিয়েছে। আমরা সকলে খুবই আপ্লুত ছবিটির বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে নির্বাচন ঘিরে।।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *