বায়ু থেকে বায়ুতে হামলা করাতে এই যুদ্ধবিমানের জুড়ি মেলা ভার

নিউজ ডেস্কঃ আমেরিকা এমন কিছু যুদ্ধবিমান তৈরি করেছিল যা বেশ কিছু দেশ লাইসেন্সড প্রডাকশান করতে চেয়েছিল। কারন তাদের এই যুদ্ধবিমান বিধ্বংসী হওয়ার পাশাপাশি বেশ ব্যবসায়িকভাবে লাভও ছিল। আর সেই কারনে আমেরিকা তাদের সেই যুদ্ধবিমান গুলির লাইসেসেন্সড প্রডাকশান করারা অনুমতি দেয়। আর সেই তালিকাতেই নাম রয়েছে এফ ১৬ ফাইটিং ফ্যাল্কন। আমেরিকার হাতে থাকা আমেরিকার হাতে থাকা অন্যতম বিধ্বংসী যুদ্ধবিমান।

যুদ্ধবিমান পরিক্ষা করার ৪ বছরের মধ্যেই সার্ভিসে নিয়ে এসেছিল আমেরিকার বায়ুসেনা। ১৯৭৮ সালে সার্ভিসে আসে এই বিধ্বংসী যুদ্ধবিমানটি। আজ থেকে ৪ দশক আগে যুদ্ধবিমানটি সার্ভিসে আসলেও এখনও প্রচুর দেশের চিন্তার কারন। ২৫ টির উপর দেশ এই বিধ্বংসী যুদ্ধবিমানটি ব্যবহার করে। ৪৬০০ টির উপর এই এই যুদ্ধবিমান তৈরি করা হয়েছে। ১৯৭৩ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত তৈরি হলেও মধ্যে এক বছর বন্ধ ছিল তাদের প্রডাকশান লাইন এরপর ২০১৯ এ আবার তাদের প্রডাকশান খোলে। ফাইটিং ফ্যালকন ভার্সনটি প্রথমদিকে তৈরি হলেও বর্তমানে এফ ১৬ এর ভাইপার ভার্সনটিকে আরও বিধ্বংসী বলে মনে করেন সামরিক বিশেষজ্ঞদের একাংশ।

৪ দশক আগে সার্ভিসে আসা এই যুদ্ধবিমানটি বায়ু থেকে বায়ুতে বায়ু থেকে ভূমিতে এবং অ্যান্টিশিপ মিসাইল বহনে সক্ষম। একের পর এক বিধ্বংসী এবং আধুনিক মিসাইল বর্তমানে এই যুদ্ধবিমানের সাথে রয়েছে। ৪০০০ কেজি যুদ্ধাস্ত্র বহনের পাশাপাশি ম্যাক ২ গতিতে অর্থাৎ ২১২০ কিমি/ঘণ্টার গতিবেগে হামলা চালাতে সক্ষম। এটি ২ টি ড্রপ ট্যাঙ্ক নিয়ে ৪২০০ কিমি পর্যন্ত পারি দিতে সক্ষম।

সর্বাধিক ৫০,০০০ ফুট উচ্চতা থেকে হামলা চালালেও রেট অফ ক্লাইম্ব ৭২০০০কিমি/ঘণ্টা অর্থাৎ প্রতি মিনিতে ৭২০০০ কিমি উপরে উঠতে সক্ষম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *