চীন, পাকিস্তানের বিমান ড্রোন এবং মিসাইল হামলাকে নিখুঁত ভাবে শনাক্ত করতে চুক্তি আমেরিকার সাথে

নিউজ ডেস্কঃ কিছুদিন আগেই ভারত আমেরিকার সাথে বেকা চুক্তি সম্পন্ন করেছে। আর তার ফলে যে চীন এবং পাকিস্তানের মতো দেশের বিরুদ্ধে যে এডভান্টেজ পাবে ভারতবর্ষ তা বলাই বাহুল্য। তার প্রধান কারন হল এই যে আমেরিকার হাতে থাকা প্রায় ৩০০০ এর কাছাকাছি স্যাটেলাইটের মধ্যে প্রচুর স্যাটেলাইটের সাহায্য পাবে।

ভারত এবং আমেরিকার 2+2 ডায়লগ এক বাৎসরিক অনুষ্ঠান এতে দুই দেশের বিদেশ ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রীরা অংশ নিয়েছিলেন। কেন এই চুক্তি গুরুত্বপূর্ণ তা আলোচনা করা হল।

প্রথমে ভারত এই চুক্তির দ্বারা বিশ্বব্যাপী ছড়ান নজরদারি উপগ্রহ নেটওয়ার্ক গ্রিড এর ফলে যোগ দিল। অর্থাৎ এরপর থেকে শত্রুর অবস্থান এবং মুভমেন্টের প্রতি পদক্ষেপে পৃথিবীর যেকোন প্রান্তে ভারতের হাতে চলে আসবে। ওই চুক্তির বলে জিও পলিটিক্যাল ইন্টেলিজেন্স, স্যাটেলাইট মানচিত্রে ও ছবি এবং ভিডিও সামরিক লখবস্তুর সব কিছু ভারতবর্ষ পাবে। BECA অর্থাৎ বেসিক এক্সচেঞ্জ এন্ড কো অপারেশন এগ্রিমেন্ট।

এর ফলে স্যাটেলাইট মানচিত্রে প্রতি মুহূর্তে ভারতের কাছে পৌঁছবে লক্ষ্যবস্তুর পুঙ্খানুপুঙ্খও সমেত। যার ফলে শত্রুপক্ষের বিমান ড্রোন বা মিসাইল হামলা নিখুঁত ভাবে শনাক্ত করতে সহায়তা করবে।

BECA চুক্তি হল ভারত এবং আমেরিকার মধ্যে হওয়া তৃতীয় গুরুত্বপূর্ণ চুক্তি। প্রথমটি হল LEMOA (লজিস্টিকস এক্সচেঞ্জ মেমরান্দাম অফ আন্ডারস্ট্যান্ডিং) এর ফলে দুই দেশের সেনা পোর্ট ভিজিট এক্সারসাইজ রাস্তা খুলে যায়। 2016 সালের আগস্ট মাসে এই চুক্তির ফলে জ্বালানি এবং অন্যান্য সামগ্রী আদান প্রদান করা হয়ে থাকে।

এর পর আসে COMCASA (কমিউনিকেশন কম্পটিবিলিটি এন্ড সিকিউরিটি এগ্রিমেন্ট) অত্যাধুনিক যুদ্ধাস্ত্র ও যোগাযোগ সামগ্রী ভারত ব্যবহার করার এবং ক্রয় করার অধিকার প্রাপ্ত হয়। সঙ্গে 2018 সালের ডিসেম্বর মাসে দুই দেশের মধ্যে এক ইন্ডাস্ট্রিয়াল এক্ট সাক্ষর হয় , ফলে দুই দেশ সামরিক বোঝা পড়া ,সিকিউর কমিউনিকেশান এবং ইনফরমেশন শেয়ার করতে সমর্থ হবে। সঙ্গে 2016 সালে যুক্তরাষ্ট্রে ভারত কে তার অন্যতম প্রধান সামরিক সহযোগী ঘোষণা এবং NATO দেশের সমান মর্যাদা প্রাপ্ত দেশ ঘোষণা করা এই প্রক্রিয়ায় গতি এনেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *