গঙ্গাসাগরে মকর সংক্রান্তিতে কেন স্নান করেন পুণ্যার্থীরা? জানুন এর মাহাত্ম্য

নিউজ ডেস্ক: কথা বলা হয় যে সব তীর্থ বারবার, গঙ্গাসাগর একবার। এই দিনে গঙ্গাসাগরে মানুষের ভিড় পড়ে যায়। পূর্ণতা অর্জনের জন্য বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানুষ এই স্থানে আসে। বলা যে কিন্তু এই মকর সংক্রান্তিতে কেন গঙ্গাসাগরে স্নান করেন পুণ্যার্থীরা? 

পৌরাণিক কাহিনী অনুসারে প্রাচীনকালে ভগীরথ নামের এক রাজা ছিলেন।তিনি ছিলেন অত্যন্ত জ্ঞানী ও দয়ালু এবং তিনি ছিলেন সাগর রাজবংশের রাজা।এই রাজা যখন বড় হলেন তখন তিনি জানতে পারলেন যে তাঁর ৬০ হাজার পূর্বপুরুষ পাপ কাজ করায় কপিল ঋষি ক্র‌ুদ্ধ হয়ে তাদের অভিশাপ দিয়ে তাঁর ওই ৬০ হাজার পূর্বপুরুষকে ছাই হয়ে দিয়েছিলেন।তখন  ভগীরথ  সিদ্ধান্ত নেন যে এই পূর্বপুরুষদের প্রাণ ফিরিয়ে দেওয়ার।তখন রাজা ভগীরথ গুরু তীর্থলার পরামর্শ মেনে কঠোর তপস্যা শুরু করেন  ব্রহ্মা ও বিষ্ণুকে তুষ্ট করার জন্য।এই তপস্যা করার জন্য তিনি গভীর জঙ্গলে চলে যান এবং তাঁর রাজ্য ভার দিয়ে যান মন্ত্রীর হাতে।তারপর শুরু হয় তাঁর তপস্যা এই কঠোর তপস্যায় তুষ্ট হয়ে ব্রহ্মা ও বিষ্ণু তাঁকে দেখা দিয়ে বর প্রার্থনা করতে বলেন।তখন  ভগীরথ প্রার্থনা করেন ব্রহ্মা ও বিষ্ণুর কাছে যে তাঁর ছাই হয়ে যাওয়া ৬০ হাজার পূর্বপুরুষের মুক্তির। তখন  ব্রহ্মা ও বিষ্ণু তাঁকে বলেন যে একমাত্র দেবী গঙ্গা তাঁদের মুক্তি দিতে পারেন।

ভগীরথ এই কথা শুনে তখন গঙ্গার তপস্যা শুরু করেন।ভগীরথের এই তপস্যায় তুষ্ট হয়ে দেবী গঙ্গা তাঁকে দর্শন দিলে দেবী গঙ্গাকে পৃথিবীতে নেমে আসার জন্য তিনি প্রার্থনা করেন।তখন দেবী গঙ্গা জানান যে তিনি পৃথিবীতে নেমে আসতে পারেন তবে তাঁর প্রচণ্ড স্রোতের কারনে এই পৃথিবী বন্যায় ভেসে যাবে।এই শুনে ভগীরথ তাঁর সাহায্যের জন্য মহাদেবের কাছে গিয়ে প্রার্থনা করেন। তখন মহাদেব সব বিষয়টি জানা পর জানান যে গঙ্গাকে তিনি নিজের জটায় আবদ্ধ করে ফেলবেন এবং সেখান থেকে গঙ্গাকে ধীর স্রোতে পৃথিবীতে পাঠাবেন।যার ফলে পৃথিবী সুজলা সুফলা হয়ে উঠবে গঙ্গার পূণ্যস্রোতে।

তারপর গঙ্গা মহাদেবের এই প্রস্তাবে সম্মত হয়ে তাঁর জটায় অবস্থান করেন এবং সেখান থেকে মা গঙ্গা সাগরে মিলিত হন, সেইদিন ছিল মকর সংক্রান্তি এবং স্থানটি ছিল কপিল মুনির আশ্রম। তারপরই ভগীরথের ওই ৬০ হাজার পূর্বপুরুষ  গঙ্গার স্পর্শে মুক্তি পান। কথিত আছে যে ভগীরথের শঙ্খধ্বনি অনুসরণ করেই মা গঙ্গা ভগবান মহাদেবের জটা হতে নেমেছিলেন মর্তে। এমনকি ভগীরথ যেমন পথ ধরে হেঁটেছিলেন মা গঙ্গাও সেই পথেই প্রবাহিত

হয়েছিল।

তাই মানুষ বিশ্বাস করে যে এই পুণ্যদিনে গঙ্গা এবং সাগরের সঙ্গমে স্নান করলেই নাকি সমস্ত খারাপ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.