ভারতের যুদ্ধবিমান গুলির জন্য আসতে চলেছে এবার দেশীয় রেডার। শনাক্তকরন রেঞ্জ কতোটা বাড়বে?

নিউজ ডেস্কঃ তেজাস আসার পর ভারতের আকাশকে সুরক্ষা করা আরও বেশি সহজ হয়েছে। কারন যুদ্ধবিমানটি দেশীয় প্রযুক্তির হওয়ার খুব সহজেই অত্যাধুনিক টেকনোলোজি ইন্সটল করা যায় কোনোরকম বাধ্যবাধকতা ছাড়া। আর সেই কারনে তেজাসের ক্ষমতা যাতে আরও বৃদ্ধি করা যায় তার চেষ্টা করে যাওয়া হচ্ছে। 

সম্প্রতি ভারতের তৈরি এসা রেডার উত্তমের অর্ডার সম্পর্কিত পুরো তথ্যাদি এসেছে। এবং এই উত্তম এসা রেডার দুটি ফেজে অর্ডার করতে চলেছে নৌসেনা এবং বায়ুসেনা। প্রথম ফেজে ১০০ টি এবং দ্বিতীয় ফেজে ৩০০ এই রেডার হাতে আসতে চলেছে। যে রেডার গুলিতে আলাদা আলাদাভাবে টি আর মডিউল থাকতে চলেছে। প্রথম ভার্সান ৭০০+ দ্বিতীয় ভার্সান ৯০০ থেকে ১০০০ ও তৃতীয়তে ১০০০ থেকে ১৫০০ এর মধ্যে টিআর-মডিউল থাকবে

বলা বাহুল্য যে এই টি আর মডিউল রেডারের ক্ষমতা বৃদ্ধি অর্থাৎ রেডারের রেঞ্জ বৃদ্ধি করতে এবুং ওয়ারলেস(তার ছাড়া) যোগাযোগ বাড়াতে সাহায্য করে। যত বেশি টি আর মডিউল থাকবে ততবেশি রেঞ্জ বৃদ্ধি পাবে তবে কিছু ক্ষেত্রে ব্যাতিক্রম আছে।

ভারতের দেশীয় বার্ডস তেজস, মিগ-২৯ইউপিজি, নৌবাহিনীর মিগ-২৯কে/কুব, বিমানবাহিনীর সুখোই সু ৩০ গুলিকে বিভিন্ন উত্তম দিয়ে পুরানো রেডার রিপ্লেস করা হতে চলেছে।ফ্রান্সের রাফালের RBE-2AA এসা রেডারে ১০০০ টিআর মডিউল থাকে। যা গেলিয়াম আর্সেনাইড বেসড। সর্বচ্চ এয়ার ডিটেক্সান বা শনাক্তকরণ রেঞ্জ ২৫৯.৩কিমি। ইউরোপের সেরা যুদ্ধবিমান ইউরো ফাইটার  টাইফুন ৪টি এয়ার টু এয়ার মিসাইল নিয়ে উড়লে তাকে ২০০কিমি দুর থেকে ট্র্যক করার ক্ষমতা রাখে রাফালের এই RBE-2AA এসা রেডার। অর্থাৎ বুঝতেই পারছেন যে ভারতের তেজাসের ক্ষমতা কতোটা বৃদ্ধি পেতে চলেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.