“মাই শর্টস্” (MY SHORTS)- এ নির্বাচিত ছবি- ফলাফল ১৫ই নভেম্বর

ভার্চুয়াল সিনেমা প্রদর্শনী প্লাটফর্ম “মাই সিনেমা হল” – এর উদ্যোগে গত অক্টোবর ১৮ থেকে নভেম্বর ১৫ অবধি আয়োজিত হচ্ছে -“মাই শর্টস্” – একটি যুগান্তকারী ভার্চুয়াল – স্বল্প দৈর্ঘের বাংলা চলচ্চিত্র উৎসব।স্বল্প দৈর্ঘের চলচ্চিত্র জগতে এরকম প্রয়াস এই প্রথম। একই সঙ্গে ছবির প্রদর্শন এবং অর্থ উপার্জনের সুবর্নসুজোগ পাচ্ছেন ছবি নির্মাতারা |

এই চলচ্চিত উৎসবের প্রধান বিচরমন্ডলীতে রয়েছেন প্রখ্যাত অভিনেত্রী-পরিচালক অপর্ণা সেন, অর্ঘকমল মিত্র ( পুরস্কার প্রাপ্ত সম্পাদক ), অনিক দত্ত ( খ্যাতিনামা পরিচালক ), ও সোহাগ সেন ( অভিনেতা ওনাটক ব্যাক্তিত্ব )।

স্বচ্ছ নির্বাচন প্রক্রিয়া এবং চলচ্চিত্র বিশেষজ্ঞ বিচারকদের যোগ্যতা এই উৎসবকে এক অন্য মাত্রা এনে দিয়েছে |

চলচ্চিত্র নির্মাতা, নির্দেশকদের কাছ থেকে খুব ভালো প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেছে।

৩০০ এরও উপর ছায়াছবি জমা পড়েছে যার মধ্যে বিভিন্ন ছবি আন্তর্জাতিক পুরস্কারে পুরস্কৃত এবং অনেক ছবি বিভিন্ন নুতন উদিয়মান নির্মাতা, নির্দেশকের তৈরি।প্রাথমিক স্ক্রীনিং এর পর সর্বোচ ৬৯ টি ছবি শর্টলিস্টেড করা হয়েছে | সামাজিক পরিস্থিতি, বর্তমান, সম্পর্কের গল্প, সাইন্স ফিক্শন এর মতো বিস্তর মুল্যবান কিছু বিষয় তুলে ধরে এখানে নির্বাচিত ছবিগুলো।

দর্শকদের সংখ্যা এবং তাঁদের প্রতিক্রিয়া এখনও পর্যন্ত খুবই ভালো এবং সন্তোষজনক।

“A SILENT WARBLE”, “LITTLE PARADISE”, “সম্পূরক” “উহাদের কথা” – এর মতো ৮টি ছায়াছবি “সর্বশ্রেষ্ঠ ছায়াছবি” বিভাগে পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন প্রতিক্রিয়ার মধ্যে হয়েছে। অন্যান্য বিভাগেও মনোনয়ন হয়েছে।

চূড়ান্ত ফলাফল এবং পুরস্কার বিশিষ্ট জুরি প্যানেলের দ্বারা নির্ণীত হবে। আগামী ১৫ই নভেম্বর, ২০২০ (ইং.) উক্ত চলচ্চিত্র উৎসবের ফলাফল ঘোষণা করা হবে।

মাই সিনেমাহলের প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে একজন, যাত্রিক চক্রবর্তী বললেন – “আমাদের একটি বড় উদ্দেশ্য ছিল – একজন শর্ট ফিল্মমেকার যাতে টিকিটের বিনিময়ে তাঁর তৈরি ছবি দর্শকদের নিকট পৌঁছে দিতে পারে। সেই উদ্দেশ্যে আমরা অনেকাংশেই সফল হতে পেরেছি বলে আমরা মনে করি। প্রচুর দর্শক টিকিট কেটে শর্ট ফিল্মস দেখতে আগ্রহী হচ্ছেন।”

কল্যাণময় চ্যাটার্জী, মাই সিনেমাহলের আরেকজন অন্যতম প্রধান কর্ণধার বলেন – “এই চলচ্চিত্র উৎসব বেশ সাড়া জাগিয়েছে। বেশ কিছু ভালো ছবি এসেছে এতে।

প্রচুর দর্শক আসছেন প্রতিদিন। আমাদের উদ্দেশ্যও এটাই ছিল, ভালো ছবি দর্শকদের কাছে পৌঁছে দেবার।”

বিখ্যাত পরিচালক এবং অন্যতম বিচারক অনিক দত্ত বলেন,“ এই উৎসবচিত্র নির্মাতাদের গুণগ্রাহী দর্শক গোষ্ঠির কাছে নিজেদের ছবি দেখাবার সুযোগকরে দিচ্ছে। আমার স্থির বিশ্বাস জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ফিল্ম উৎসবে ভালছবি বেছে নেবার জন্য এই উৎসবের ছবিগুলির ভান্ডার প্রয়োজনীর বলে গণ্যহবার যোগ্যতা রাখবে। “

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *