উট পাখি থেকে শুরু করে কিউই। ডানা থাকলেও উড়তে সক্ষম নয় যে ৫ টি পাখি

নিউজ ডেস্ক পাখি হচ্ছে এমন একটি প্রাণী যারা স্বাধীনভাবে আকাশে উড়তে পারে। আমাদের সকলেরই কোন কোন সময় একবার হলেও ইচ্ছা হয়েছে পাখি হতে। তবে শুধুমাত্র ওর জন্য নয় নিজেদের জীবন বাঁচাতে, খাদ্য সংগ্রহ করতে, এমনকি এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যেতে ও পাখির ডানার ব্যবহার করে থাকে।  কিন্তু বিশ্বে এমন কিছু পাখি রয়েছে যাদের ডানা থাকলেও তারা উড়তে পারে না। কার্যত কালের পরিবর্তনে এবং ডানার ব্যবহার কম করার কারণে উড়তে প্রায় ভুলে গেছে এই সকল পাখিরা। 

বিজ্ঞানীদের ভাষায় পাখিদের ডানা এতটাই পাতলা হয় যার কারণে তারা অনায়াসে উঠতে পারে। কারণ পাখিদের দেহে হার বেশি ফাঁপা থাকে ও বায়ু দ্বারা পরিপূর্ণ হয়। আর এই বিশেষ বৈশিষ্ট্যের কারণে আকাশে অনায়াসে নিজের দু’টি ডানা মেলে ভ্রমণ করতে পারে পক্ষীরা। এটি মূলত সাধারণ বিষয়। কিন্তু যে সকল পাখি উড়তে পারে না বা উড়তে ভুলে গিয়েছে তাদের শরীরের বেশ কিছু পরিবর্তন দেখা যায়। সেই সকল পাখির বিষয়ে আজকের প্রতিবেদনে কিছু লেখা হয়েছে। 

১) পেঙ্গুইন – হিমশীতল রাজ্যে বসবাস করে পেঙ্গুইন। প্রধানত আন্টার্কটিকা মহাদেশে এদের দেখা যায়। এরা মূলত লম্বায় গড়ে হয় ৪ ফুটের কাছাকাছি। এদের দুটি ডানা ও দুটি পা থাকে। ডানার সাহায্যে এরা বরফ গলা জলে সাঁতার কাটতে পারে। আর পায়ের উপর ভর দিয়ে হাঁটাচলা করে। পেঙ্গুইনরা মূলত খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করে মাছ এবং স্কুইড জাতীয় প্রাণী। এই ধরনের মোট আটটি প্রজাতির পেঙ্গুইন রয়েছে। যার কারণে ওড়ার প্রয়োজন না পড়ায় ডানা বর্তমানে অবলুপ্ত হয়ে রয়ে গিয়েছে। 

২) ক্যাসোওয়ারি –  ছোটখাটো দেখতে এই প্রজাতির পাখিরা পাপুয়া নিউগিনি অঞ্চলে বসবাস করে। এরা  দস্যু মনোভাবের হওয়ার ও এদের গলার স্বর কর্কশ হওয়ায় এদের ধাড়ে কাছে কোন প্রাণী ঘেষতে পারে না। তবে এদের আত্মরক্ষার জন্য ব্যবহার করে নিজেদের ধারালো নখ। এই নখ দিয়ে নিজেদের খাদ্য স্বীকার করে এরা। এরা মূলত লতাপাতা ও পোকামাকড় খেয়ে ভরণপোষণ করে।

৩) উটপাখি – উট পাখি নামের সঙ্গে পাখি যুক্ত থাকলেও এরা উড়তে পারে না। উটপাখিদের মূলত আফ্রিকা এবং দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার একাধিক অঞ্চলে দেখতে পাওয়া যায়। তবে পাখি না হলেও এদের চলন-বলন পাখিদের মতই। এদের দেহাকৃতি বিশাল আকৃতির হয়। পাশাপাশি এদের ডানা ও খুব বড় ও ভারী হয়। যার কারন এরা উঠতে পারে না। এমনকি এরা বিশাল আকৃতির ডিম দেয়। তবে এই উটপাখি গুলি আত্মরক্ষার জন্য নিজেদের পা ব্যবহার করে। হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন। সরু সরু দুটি পা দিয়ে এরা ঘণ্টায় প্রায় ৭৩ কিলোমিটার পর্যন্ত দৌড়াতে পারে। 

৪)  কিউই – ছোটখাটোর মতো দেখতে কিউই পাখিটি দেখতে ভারী মিষ্টি ও গোলাকৃতির। এই পাখির নামানুসারে একটি ফলও রয়েছে কিউই। এদের দেখা যায় নিউজিল্যান্ডে। কিউই পাখি  সৌন্দর্যের দিক থেকে আকর্ষণীয় হলেও এরা উড়তে পারে না। বাকি পাখিদের মতো এদের ডানা  থাকলেও অচল। 

৫) ওয়েকা – নিউজিল্যান্ড ও ইউরোপের বিভিন্ন অঞ্চলে ওয়েকা পাখির দেখা মেলে। এদেরও কিউই পাখির মতো ডানা থাকলেও এরা উড়তে পারে না। তবে এদের গলার আওয়াজ খুবই কর্কশ ও জোরালো। কিন্তু এদের কেউই পাখির মতো রুপ না থাকলেও সাঁতার কাটাতে পারদর্শী ওয়েকা প্রজাতির পাখিরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.