চীনে প্রস্রাব দিয়ে ডিম সেদ্ধ করার পাশাপাশি যে খাওয়ার গুলি খাওয়া হয়

করোনায় আতঙ্কিত গোটা বিশ্ব। আর এই করোনা ছড়ানোর মূল নায়ক হল চীন। অর্থাৎ এই চীনা ভাইরাসকে ঠেকাতে রীতিমতো বেগ পেতে হচ্ছে গোটা পৃথিবীকে। তবে শুধু ভাইরাস নয়, চীনের এমন কিছু ব্যবস্থা রয়েছে যা গোটা পৃথিবীকে অবাক করেছে।

পুলিশ ব্যবস্থাঃ আমরা সবাই জানি যে পুলিশ এর কাছে সব সময় কুকুর থাকে।তবে ব্যতিক্রম হল চীন। এই চীনের পুলিশ এর কাছে কুকুরের বদলে হাঁস রাখা হয়। কারন নাকি কুকুরের থেকে হাঁস অনেক বুদ্ধিমান এবং সাহসী হয়। কিন্তু এটি আসল সত্য নয়। আসল সত্য হল যে চীনের মানুষেরা কুকুর খায় তাই পুলিশ এ কুকুর রাখা হয় না।তবে এই হাঁসদের খুব ভালোভাবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়ে থাকে।

ইউলিন ফেস্টিভ্যাল এই ৯ দিন ব্যাপী অনুষ্ঠানটিতে অজস্র কুকুর মেরে তাদের খাওয়া হয়।চিনের আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে প্রায় ১ কোটি কুকুর মেরে ফেলে।এই অনুষ্ঠানটির মূল উদ্দেশ্য থাকে কুকুর খাওয়া।

জেল ব্যবস্থাঃ সব দেশেই যারা অপরাধ করে তারা জেলে যায়। কিন্তু চীনে এর ব্যাতিক্রম। এখানে যদি ধনি ব্যাক্তিরা অপরাধ করে তাহলে তারা জেলে যায় না তাদের পরিবর্তে অন্যরা জেলে যায়। তাই ওখানের ধনি ব্যাক্তিরা অপরাধ করতে ভয় পায় না

ডিমঃ ডিম আমরা সবাই খাই। আমরা ডিম সেদ্ধ করি জল দিয়ে তবে চাইনার মানুষেরা ডিম সেদ্ধ করে প্রস্রাব দিয়ে। কারন হিসাবে জানা যায় যে প্রস্রাব দিয়ে ডিম সেদ্ধ করতে তাতে আরো বেশি পরিমানে নিউট্রিয়েন্স ও মিনারেল পাওয়া যায় এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বৃদ্ধি পায়।

ডিফেক্টিভ বেবিঃ চীনের অস্বাস্থ্যকর জীবন ধারন এবং বায়ুদুষনের ফলে প্রতি বছর প্রায় ১০ লক্ষ বাচ্চা কোনো না কোনো সমস্যা নিয়ে জন্ম নেয়। কোনো বাচ্চার  মানুষিক সমস্যা থাকে আবার কোনো বাচ্চার হাত পা বা কোনো কিছু অসম্পূর্ণ নিয়ে জন্ম গ্রহন করে।প্রতি সেকেন্ডে নাকি ১ টি করে এই রকম বাচ্চার জন্ম হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.