ওটিটি প্ল্যাটফর্মের অভিনব সংযোজন, বিগব্যাং অ্যাপ

দীর্ঘ ২ বছরের লকডাউনে জীবন বদলে গেছে অনেকটাই। বদলেছে দৃষ্টিভঙ্গী। আদব কায়দাও। কর্ম থেকে বিনোদন, সব কিছুরই ঠিকানা এখন চেনা চার দেওয়ালের ঘেরাটোপ। বদলে গেছে বিনোদনের তারিকাও। সিনেমার বড় পর্দাগুলি গুটিয়ে যাওয়ায় খুলে গেছে ওটিটি প্ল্যাটফর্মের অজস্র স্ক্রিন। এই ট্রেন্ডের নবতম হলেও বেশ অভিনব সংযোজন, বিগব্যাং অ্যাপ। বিগব্যাং অ্যামিউজমান্ট-এর সিইও সুদীপ মুখার্জি ও তাঁর চার সহচর, শ্রীকান্ত অগ্রওয়াল, রিঙ্কু সুকুমার বিশ্বাস, নিবেদিতা বসু ও শুভেন্দু বসুর নিরলস প্রচেষ্টারই ফল একক এই অ্যাপ। যেমন টান-টান এবং উচ্চমানের কন্টেন্ট, তেমনই অত্যাধুনিক প্রযুক্তির জাদু! দর্শকের মন পেতে আর কিছু লাগে কি?

ডিজিটাল মাধ্যমে বিগব্যাঙ্গের আনুষ্ঠানিক আবির্ভাব ৩০ জুন, ২০২১। তানিশা মুখার্জি ও রিঙ্গো ব্যানার্জির মতো বলিউড এবং টলিউড তারকাদের সমাগমে ঝলমল করে ওঠে অনুষ্ঠান। খুলে দেওয়া হয় বিনোদনের অনন্য এক পৃথিবীর দরজা। যেখানে নানা বয়সের দর্শকের জন্য থাকবে নানা স্বাদের ছবি, কিছু নিজস্ব তো কিছু অধিগত। থাকবে স্বনামধন্য পরিচালকদের বাছাই করা চলচ্চিত্র। আপাতত চারটি আঞ্চলিক ভাষা- হিন্দি, বাংলা, ভোজপুরি ও ওড়িয়া-তে ১০০ ঘন্টার কন্টেন্ট নিয়ে স্ট্রিমিং জগতে পদার্পণ। তবে খুব শীঘ্রই ১০টি প্রাদেশিক ও ৮টি আন্তর্জাতিক ভাষায় ৩০০ ঘন্টারও বেশি কন্টেন্ট হাজির করতে চলেছে বিগব্যাং।

মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছতে এবং বিনোদন থেকে কাউকে বঞ্চিত না রাখতে, এই অ্যাপের বার্ষিক সাবস্ক্রিপশান চার্জ রাখা হয়েছে মাত্র ১১ টাকা। ঠিকই পড়লেন, ১১ টাকা। বদলে পাওয়া যাবে প্রতিভাবান নবাগতদের পাশাপাশি নাসিরুদ্দিন শাহ, রোহিত রায়, গুরমিত চৌধুরী, হিতেন তেজওয়ানি, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, শারিব হাশমি, রজতাভ দত্ত, তানিশা মুখার্জি, লিলিপুট, ঋতাভরী চক্রবর্তী, নভনী পরিহারদের মতো দক্ষ ও খ্যাতনামা তারকাদের শিল্পের আস্বাদ। বিগব্যাং অ্যামিউজমান্ট-এর সিইও সুদিপের বক্তব্য, “এ তো সবে শুরু। আমাদের উদ্দেশ্য বৃহৎ থেকে বৃহত্তর। পৃথিবীর বৃহ্ত্তম কন্টেন্ট লাইব্রেরি ক্রিয়েট করা এবং প্রতি তিন মাসে নতুন একটি করে ভাষা এই সঙ্কলনে যোগ করা আমাদের লক্ষ।”

এহেন এক অভাবনীয় পরিকল্পনাকে কুর্নিশ না জানিয়ে কি থাকা যায়! ব্যাং অন বিগব্যাং!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *