ইস্টবেঙ্গলের জার্সিতে এক নতুন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে চলেছেন ‘মিজো স্নাইপার’ জেজে

নিউজ ডেস্কঃ হাতে গোনা আর মাত্র কয়েকটা দিন। এরপরই শুরু হতে চলেছে বহু প্রতিক্ষিত আই এস এল। বহু প্রতিক্ষিত! শব্দটা নিয়ে অনেকেরই মনে প্রশ্ন আসতে পারে যে এতো বছর ধরে আই এস চলছে, এই বছর বহু প্রতিক্ষিত বলার কারন? আসলে চলতি মরশুমে আই এস এল বাকি বছর গুলির থেকে আলাদা। কারন?

এই বছর আই এস এলে দুই শতাব্দী প্রাচীন ক্লাব ইস্টবেঙ্গল এবং মোহনবাগান ক্লাবকে দেখা যেতে চলেছে। শুধু তাই নয় পাশাপাশি ভারতের জাতীয় দলের তারকা জেজে লাল পেখলুয়াকে মাঠে দেখা যাবে।

দু’বছর মাঠের বাইরে থাকার পরে এই বছর আই এস এলে দেখা যেতে চলেছে জেজে কে। হাঁটুতে চোট নিয়ে দীর্ঘদিন মাঠের বাইরেই ছিলেন এই তারকা। তবে ফেরাটা কিন্তু এতো সহজ ছিলনা জেজের কাছে। অনুশীলনে ফেরাটা জেজে লালপেখলুয়ার কাছে ছিল স্বপ্নের মতো। এসসি ইস্টবেঙ্গলের মিজো তারকা এখন চুটিয়ে অনুশীলন করছেন নিয়মিত। পাশাপাশি মাঠের অনুশীলন বেশ উপভোগ করছেন তিনি।

“ঘাসের ছোঁয়া, বলের ছোঁয়া, এর থেকে ভালো আর কিছুই হয় না। এর অনুভূতি মুখে বলে বা লিখে প্রকাশ করাটা অসম্ভব।

গত ছয় মরশুম ধরে জেজে ছিলেন চেন্নাইন এফসি-তে ছিলেন। গত মরশুমের শেষে তিনি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে দক্ষিণের ক্লাবটি ছাড়বেন। কলকাতায় মোহনবাগানের হয়ে জেজে প্রথম মাঠে নামেন ২০১৪-১৫ মরশুমে। সে বার ১২টি ম্যাচ খেলে মাত্র একটি গোল করেছিলেন। ২০১৬ এবং ২০১৭ তে চেন্নাইন এফসি থেকে লিয়েনে তিনি সবুজ-মেরুন জার্সি গায়ে মাঠে নামেন। ২০১৬-য় চারটি গোল করেন ১৪ ম্যাচে এবং পরের বছর পাঁচটি গোল করেছিলেন ১৭টি ম্যাচে।

চেন্নাইন এফসি-র হয়ে হিরো আইএসএলে মোট ৬৯টি ম্যাচ খেলে ২৩টি গোল করেছেন এই মিজো তারকা। শুধু তাই নয় পাশাপাশি দু’বার চ্যাম্পিয়ন দলেও ছিলেন। ২০১৯-২০-তে চোটের জন্য অবশ্য পুরো আইএসএল মরশুমেই খেলতে পারেননি তিনি। গোটা একটা মরশুম খেলতে না পারায় এ বার সাফল্যের খিদে কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে তাঁকে।

২৯ বছর বয়সি মিজো ফরোয়ার্ড এখন দলের সিনিয়র। কেরিয়ারের শুরুতে তিনি লিগামেন্টে চোট পেয়েছিলেন। কিন্তু ব্যথা সহ্য করেও খেলে যান এবং চোটটা মারাত্মক ভাবে বেড়ে যায়। ইটালিতে ডা. সিলিও মুসার কাছে গিয়েছিলেন চিকিৎসার জন্য। তাঁর চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ে জেজে বলেন, “পদ্ধতিটা একেবারেই আলাদা। নিয়মমাফিক ফিজিওথেরাপির চেয়ে একদমই আলাদা”। ইটালিয়ান ডাক্তারের নজরে থেকে চেন্নাইয়ের সেন্টার ফর স্পোর্টস সায়েন্সে রিহ্যাবের অনেকটাই কাটান তিনি।

এ বার ইস্টবেঙ্গলের জার্সিতে এক নতুন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে চলেছেন।

বহু জল্পনার পরে এসসি ইস্টবেঙ্গলে যোগ দিয়ে জেজে জানিয়েছিলেন, “ভারতবর্ষের প্রতিটি ফুটবলার এসসি ইস্টবেঙ্গলের মতো দলের হয়ে মাঠে নামার স্বপ্ন দেখে। হিরো আইএসএলে তাদের প্রথম মরশুমেই যোগ দিতে পারাটা আমার কাছে গর্বের মতো ব্যাপার। গত মরশুমে না খেলতে পারায় এ বছর মাঠে নামার জন্য ছটফট করছি আমি। লাল-হলুদ জার্সি গায়ে দিয়ে মাঠে নামার দিনগুনছি। মাঠে নিজের সেরাটা উজাড় করে দিতে চাই”।

কথা রাখতে পারবেন কি না ‘মিজো স্নাইপার’, সেটা হয়ত সময়ই বলে দেবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *