এই টেকনোলোজি ভালো পারফর্ম করেছিল সম্প্রতি ভারত পাক সংঘর্ষে। কিন্তু এখনও কেন অর্ডার করা হচ্ছেনা?

নিউজ ডেস্কঃ ভারতবর্ষের বিমানবাহিনীতে যে ঠিকমতো নজর দেওয়া হয়না, বা বেশ কিছু খামতি রয়েছে তা বলাই বাহুল্য। কারন ভারতবর্ষের বায়ুসেনার কাছে আওাক্সের সংখ্যা খুব কম।

ভারতীয় বিমানবাহিনীর অন্যতম প্রধান এ্যসেট হল ফ্যালকন আওায়াক্স। এটি একটি রাশিয়ান আইএল-৭৬ বিমান যাকে মডিফাই করে বসানো হয়েছে EL/W-2090 এ্যওয়াক্স সিস্টেম বসানো। একটি এ্যওয়াক্সের সিস্টেমে রেডার, ডাটা লিংক, ইলেকট্রনিক ওয়ারফেয়ার সুইট সহ ইলেকট্রনিক কাউন্টার ও সাপোর্ট মেজর, কমিউনিকেশান লিংক ইত্যাদি থাকে।

ইসরায়েলের EL/W-2090 অত্যন্ত শক্তিশালী রেডার সিস্টেম। এটা আমেরিকার প্রধান এ্যওয়াক্স ই-৩ সেন্ট্রির প্রসেসিং ইউনিট ও রেডার বিমের এজিলিটির চেয়ে ইসরায়েলের এই EL/W-2090 ১০গুন বেশি দ্রুত কাজ করে। ভারতের প্রথম ফ্যলকন আসে ২০০৯সালে। তখন এশিয়ার একমাত্র দেশ হিসাবে AESA রেডার কম্যান্ডের অধিকারী হয় ভারত।

কিন্তু সরকারের উদাসীনতায় পাকিস্তানের কাছে এ্যওয়াক্সের সংখ্যা ভারতবর্ষের দ্বিগুণ। ভারত এরকম ফ্যলকন আরও দুটো অর্ডার করতে চায় বলে মত সামরিক বিশেষজ্ঞদের। কিন্তু চুক্তি এখনও ঝুলে আছে। ফ্যলকনের চেয়ে নেত্রা বেশি ভালো পারফর্ম করেছিল সম্প্রতি ভারত পাক সংঘর্ষে। নেত্রা অবশ্যই বিরাট সংখ্যায় প্রয়োজন। তবে বড় রেডার এ্যওয়াক্সের নিজেস্ব সুবিধা আছে। তার ওপর ফ্যলকন ৩৬০ডিগ্রী কভারেজ দেয়। যেটা একটা বড় সুবিধা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *