সার্ভিসে আসছে রাশিয়ার নতুন ট্যাঙ্ক। বৈদেশিক ব্যবহারকারী দেশ হিসেবে ভারতের নাম সবার উপরে উঠে

নিউজ ডেস্কঃ রাশিয়া এবং ভারতবর্ষের সম্পর্ক নিয়ে নতুন কিছু বলার আর দরকার হয়না। একটা সময় এমন ছিল যে ভারতবর্ষের জন্য সারা পৃথিবীর সাথে যুদ্ধ করতে রাজি হয়ে গিয়েছিল রাশিয়া। আর এই রাশিয়ার প্রচুর যুদ্ধাস্ত্র ব্যবহার করে ভারতের সেনাবাহিনী। একটা সময় এমনও হয়েছিল যে ভারতবর্ষের সেনাবাহিনীর ৯০ শতাংশ যুদ্ধাস্ত্র রাশিয়ার থেকে ক্রয় করা হয়েছিল। অর্থাৎ রাশিয়া নতুন কোন অস্ত্র নিয়ে আসলে তা ভারতবর্ষ পেতে পারে বলে আশা করা যায়।

যুদ্ধবিমান থেকে শুরু করে আর্টিলারি অর্থাৎ আকাশ থেকে শুরু করে স্থলে একের পর এক যুদ্ধাস্ত্র রয়েছে রাশিয়ার কাছে যা ভারতবর্ষ ব্যবহার করে থাকে। এবং তাদের হাতে নতুন অস্ত্র আসলে তা সেনাবাহিনীকে অফার করা হয়। কিছুদিন আগেই তারা এক নতুন প্রজন্মের অত্যাধুনিক প্রযুক্তির টি-১৪ আমারতা মেইন ব্যাটল ট্যাংকের প্রডাকশান শুরু করেছে। ২০১৫ সালের এবং ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত পরীক্ষামুলকভবে মোট ২০টি এই ধরনের ট্যাঙ্ক সার্ভিসে নিয়ে আসে রাশিয়া।

ট্যাঙ্ক গুলির ইউনিট কস্ট ৪.০০ মিলিয়ন ডলারের কাছাকাছি পর্যন্ত। তবে ট্যাঙ্ক গুলি যেকোনো সময় বিধ্বংসী রুপ নিতে পারে। কারন এটি ৮০ কিলোমিটার গতি সম্পন্ন এই মেইন ব্যাটল ট্যাংকের সর্বচ্চ রেঞ্জ ৫০০ কিলোমিটার এবং ওজন প্রায় ৪৮ টন।

এই ধরনের ট্যাঙ্ক সার্ভিসে নিয়ে আসতে চলেছে রাশিয়া। যা ২০২৩-২৪ সালের মধ্যে হাতে পাবে তারা। নতুন প্রজন্মের মোট ১০০টি টি-১৪ আরমাটা মেইন ব্যাটল ট্যাংক সার্ভিসে আনার লক্ষ্য নিয়ে ম্যাসিভ প্রডাকশন লাইন চালু করেছে এবং ২০৩০ সালের মধ্যেই প্রায়  ৮০০ এর উপর এই জাতীয় নতুন প্রজন্মের মেইন ব্যাটল ট্যাংক তৈরি করা হবে বলে সুত্রের খবর। রাশিয়া পরীক্ষা করার জন্য বেশকিছু এই জাতীয় জাতীয় ট্যাংককে সিরিয়ায় পাঠিয়ে বিরাটভাবে গবেষণা চালাচ্ছে। ভবিষ্যতে রাশিয়ার টি-১৪ আরমাটা মেইন ব্যাটল ট্যাংকের প্রথম বৈদেশিক ব্যবহারকারী দেশ হিসেবে ভারতের নাম সবার উপরে উঠে আসবে বলে মত সামরিক বিশেষজ্ঞদের একাংশের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *