ভারতকে কোণঠাসা করতে এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশের সাথে নতুন চুক্তি চীনের?

নিউজ ডেস্কঃ চীনের সস্তার পণ্য বিক্রি করার ফলে প্রচুর দেশ ইতিমধ্যে খতিগ্রস্থ হয়েছে তা বলাই বাহুল্য। কিছুদিন আগেই এক রিপোর্টে প্রকাশ পেয়েছে যে পাকিস্তানের ৪০ শতাংশ যুদ্ধবিমান (জে এফ ১৭) গ্রাউন্ডেড অর্থাৎ এগুলিকে আর বিভিন্ন মিশনে নেওয়া যাবেনা। আর এই যুদ্ধবিমান গুলি চীনের থেকে ক্রয় করেছে পাকিস্তান। তাদের পরমবন্ধু পাকিস্তানের সাথে তারা এরকম করলে বাকিদেশের সাথে কি করতে পারে তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা। তাই চীনের সাথে কোনোরকম চুক্তি করতে রাজি নয় ভারতবর্ষ।

বিশ্বের বৃহত্তম মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি (free trade deal) সম্পন্ন করল চিন-সহ এশিয়ার মোট ১৫টি দেশ। তবে এর মধ্যে নেই ভারতবর্ষের নাম। ফলে এই নতুন চুক্তির দ্বারা বেজিং নয়াদিল্লিকে কোণঠাসা করার চেষ্টা করতে পারে বলে মত আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের একাংশের।

চিন, জাপান, নিউজিল্যান্ড, ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ১২টি দেশ মিলে ভারচুয়াল অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিশ্বের বৃহত্তম মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি ‘রিজিওনাল কম্প্রিহেনসিভ ইকনমিক পার্টনারশিপ (RCEP)-সম্পন্ন হয়, এদিন এর নেতৃত্বে ছিলেন ভিয়েতনামের প্রধানমন্ত্রী। আর এর কারনে এবার থেকে দেশগুলি একে অপরের সাথে কোনোরকম বাধা ছাড়াই বাণিজ্য করতে পারেবে।

এই নতুন চুক্তির ফলে অনেক  অর্থনৈতিক সমস্যার সমাধান হবে। পাশাপাশি এর দ্বারা উপকৃত হবেন সারা বিশ্বের অন্তত ২০০ কোটি মানুষ।

তবে হটাত ই এমন হয়নি, এই চুক্তি নিয়ে অনেক আগে থেকেই আলোচনা চলছে। আট বছর আগে অর্থাৎ ২০১২ সালে এর প্রস্তাব আসে, সেইসময় ভারতবর্ষ এর পক্ষে থাকলেও বর্তমানে এর পক্ষে আরও নেই, কারন এই চুক্তির ফলে ঘুরিয়ে উপকৃত হবে চীন। কারন সস্তার পণ্য অন্য দেশের বাজারে বেশি পরিমাণে বিক্রির করবে তারা। এর ফলে সেই দেশগুলির অর্থনীতি প্রবল্ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে। আর সেই কারন বশত গত বছর এই চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধন্ত নেওয়া হয় নয়াদিল্লির পক্ষ থেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *