দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি করে। গাজরের অসাধারন কিছু উপকারিতা

নিউজ ডেস্কঃ গাজর অত্যন্ত পুষ্টিকর ও সুস্বাদু শীতকালীন সবজি যা প্রায় সারা বছরই পাওয়া যায়। গাজরের পুষ্টিগুণ ও উপকারিতার আধিক্য তার কারনে গাজরকে বলা হয় সুপার ফুড।জেনা নেওয়া যাক গাজরের উপকারিতা সম্পর্কেঃ

দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি করেঃ গাজর চোখের দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধিতে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধিতে বিটা-ক্যারোটিন(ভিটামিন এ) একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। গাজরে প্রচুর পরিমাণে বিটা-ক্যারোটিন নামের এক ধরনের উপাদান থাকে।এই উপাদানটি শরীরে ভিটামিন এ পরিনিত হয়।তাই গাজরে উপস্থিত বিটা ক্যারোটিন দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি করে, চোখের কলাকোষ তৈরিতে সাহায্য করে। রাতকানা, গ্লুকোমা ইত্যাদি রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করেঃ গাজরের মধ্যে যে ক্যারটিনয়েড থাকে তা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করে। আর এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরে ক্ষতিকারক জীবাণু, ভাইরাস এবং বিভিন্ন ধরনের প্রদাহের বিরুদ্ধে কাজ করে। এছাড়া অ্যান্টি অক্সিডন্ট শরীরকে বিষমুক্ত করে, হৃদরোগ ও ক্যান্সার প্রতিরোধেও সাহায্য করে। গাজরে অ্যান্টি অক্সিডন্ট ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের খনিজ যেমন-পটাশিয়াম,ফসফরাস ইত্যাদি থাকে যা হাড় গঠন, নার্ভাস সিস্টেমকে শক্ত করা ও মস্তিষ্কের ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করা।

ওজন কমায়ঃ পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ গাজরে ক্যালোরি এবং সুগারের পরিমান খুব কম থাকে। এটি খেলে পেট ভরা থাকে বলে ক্যালোরিবহুল অন্য খাদ্য খেতে হয় না। এছাড়া গাজর চর্বি কমাতে সাহায্য করে বলে ওজন কমে। তাই ওজন কমাতে বেশি বেশি গাজর খান।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করেঃ গাজরে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যা শরীর থেকে ফ্রি র‍্যাডিকেলস দূর করে। ফ্রি র‍্যাডিক্যলস হল শরীরের উচ্ছিষ্টাংশ যা শরীরের উপকারী কোষ নষ্ট করে এবং ক্যান্সারসহ আরো অনেক জটিল রোগ সৃষ্টি করে।বিভিন্ন গবেষনায় দেখা গেছে যে গাজরে উপস্থিত অ্যান্টি অক্সিডেন্ট এবং অন্যান্য পুষ্টি উপাদান গুলো ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক। নিয়মিত গাজর খেলে ব্রেস্ট ক্যান্সার, কোলন ক্যান্সার, ফুসফুসের ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে।

অ্যান্টি অ্যাজিং ও ত্বকের সুস্থতা রক্ষা করেঃ গাজরে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ত্বকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে এবং ত্বকের ইলাস্টিসিটি বজায় রাখে। তাই এটা তারুন্য ধরে রাখতে সক্ষম একটি খাবার। ত্বকের ক্ষেত্রে গাজরের অন্যান্য  উপকারিতার মাঝে বলিরেখা প্রতিরোধ করা অন্যতম।এছাড়া অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও পটাশিয়াম এর মতো খনিজ উপস্থিতি ত্বক শুকিয়ে জাওয়া,স্কিন টনকে উন্নত করা এবং ত্বকের দাগ পড়া থেকে রক্ষা করা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.