চুলের রুক্ষতা দূর করতে পারে। ঘরোয়া উপায়ে হেয়ার মাস্কের যেভাবে ব্যবহার করবেন

নিউজ ডেস্কঃ সুন্দর ঝলমলে চুল আমাদের সৌন্দর্যের চাবিকাঠি। আর সেই কারণেই ঝলমলে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল চাই আমরা সকলেই ।চুল ভালো রাখতে পার্লারে স্পা সহ বিভিন্ন হেয়ার ট্রিটমেন্ট এভ্যালেভেল আছে ঠিকই তবে সবসময় পার্লারে গিয়ে টাকা খরচ করে চুলের যত্ন নেওয়া সম্ভব হয় না অনেকেরই এবং এতে সময়ও লাগে অনেক বেশি । তাই বাড়িতেই যদি ঘরোয়া উপায়ে যত্ন নেওয়া শুরু করেন চুলের তবে আলাদা করে স্পা করার দরকার পড়বে না আর কখনো।

আসুন জেনে নেওয়া যাক ঘরোয়া উপায়ে হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করে কিভাবে পাওয়া যেতে পারে সুন্দর ঝলমলে চুল

1)মসৃণ কোমল চুল পেতে

মসৃণ ও কোমল চুল ঘরে বসে সহজেই পেতে পারেন শুধুমাত্র টক দই ও মধু ব্যবহার করে। চুলের যত্ন নিতে কন্ডিশনার ব্যবহার করি আমরা সকলেই। তবে এবার থেকে কন্ডিশনারের বদলে 2 চা চামচ টকদই ও 3 চা চামচ মধু মিশিয়ে বানিয়ে নিন হেয়ার মাস্ক ।স্নানের আগে প্রত্যেক দিন এই মিশ্রণটি 15 মিনিট লাগিয়ে রাখুন চুলে এরপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেললেই দেখবেন চুল হয়ে উঠবে কোমল ও মসৃণ ।

2)চুলের রুক্ষতা দূর করতে

রুক্ষ চুল দেখতে যেমন লাগে বাজে,তেমন ম্যানেজ করাও হয়ে ওঠে এক সমস্যার ব্যাপার। এই চুলের রুক্ষতা সহজেই দূর করতে পারবেন ঘরোয়া উপায়ে।এর জন্য একটি পাত্রে দুটি ডিম ও তিন চামচ মধু মিশিয়ে তা ভালো করে ফেটিয়ে নিন প্রথমে এরপর এই মিশ্রণটি চুলে লাগিয়ে অপেক্ষা করুন একঘণ্টা পর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেললে চুলের রুক্ষতা কমে যায়। এমনকি দীর্ঘদিন ব্যবহার করতে থাকলে চুল হয়ে ওঠে রেশমিও ।

3)মজবুত চুল পেতে ও চুল পড়া রোধ করতে

চুল পড়ার সমস্যায় অনেকেই ভোগেন আর এর মূল কারণ হলো চুলের দুর্বল হয়ে পড়া।মজবুত চুল পেতে ব্যবহার শুরু করুন অ্যালোভেরার ।নিয়মিত অ্যালোভেরা জেল ও ভিটামিন ই ক্যাপসুল একসাথে মিশিয়ে মিশ্রণটি চুলের আগা থেকে গোড়া অবধি ভালো করে লাগিয়ে ম্যাসাজ করুন স্কাল্পে হালকা হাতে । কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে কম ক্ষারযুক্ত শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেললে চুলের যাবতীয় সমস্যা হবে দূর।মজবুত চুল তো পাবেনই সেইসাথে চুল পড়া যেমন রোধ হবে খুশকির সমস্যাও কমে যাবে অনেকটাই ।

চুলের যত্ন নিলে শুধুমাত্র হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করা যথেষ্ট নয় সেই সাথে নিম্নলিখিত কয়েকটি টিপস মেনে চলা অত্যন্ত জরুরী ।

1)প্লাস্টিকের চিরুনি ব্যবহার হেয়ার ফলিকলগুলোকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে তাই প্লাস্টিকের চিরুনির বদলে ব্যবহার শুরু করুন কাঠের চিরুনি। এতে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে এবং চুলে থাকবে সুস্থ ।

2)হাতে সময়ের অভাব থাকায় আমরা অনেকেই ভেজা অবস্থাতেই চুল আঁচড়ে ফেলি এর ফলে জট অবস্থায় চুল আঁচড়ানোয় চুল উঠে যায় এবং ক্ষতিগ্রস্ত ও হয় ভীষণ ।তাই এবার থেকে যতই তাড়া থাকুক না কেন চেষ্টা করবেন চুল কিছুটা শুকিয়ে আসার পর আঁচড়াতে।

3)দূষণ আমাদের চুলকে ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করে এবং চুল হয়ে যায় ড্যামেজ ।তাই বাইরে যাওয়ার আগে সম্ভব হলে চুল ঢেকে নেবেন এতে চুল কিছুটা হলেও ক্ষতির হাত থেকে বাঁচবে ।

4)স্নানের পর চুল তাড়াতাড়ি শুকানোর জন্য অনেকেই হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার করেণ। এর উচ্চ তাপমাত্রা আমাদের চুলকে ড্যামেজ করে দেয় খুব দ্রুত। তাই যেকোনো ধরনের প্রোডাক্ট ব্যবহারের আগে যথেষ্ট পরিমাণ সাবধানতা অবলম্বন করবেন অবশ্যই এবং যতটা পারবেন  এড়িয়ে চলবেন। এতেই চুল থাকবে সুস্থ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.