অতিরিক্ত মদ্যপানের কারনেই শরীরে অর্ধেকেরও বেশি ক্যানসার

নিউজ ডেস্কঃ মদ্যপান। ভারতবর্ষে ১৪ বছর বয়েস থেকে মদ্য পান শুরু করে এমন মানুষের সংখ্যা প্রচুর। বিশেষ করে উত্তরপ্রদেশ বা পশ্চিমবঙ্গের মানুষ যে হারে মদ্যপান করেন তা সত্যি চিন্তার বিষয়। এবং এই নিয়ে একাধিকবার সচেতনতা বার্তা দিয়েও কোনরূপ কাজ হয়নি। মদ্যপানের ফলে সমাজের প্রতি স্তরের মানুষই ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। তবে সেক্ষেত্রেও মদ্য পানের বিরুদ্ধে বলতে গেলেও মানুষ কোনরূপ কান দেওয়ার প্রয়োজন বোধ মনে করেনা। দিনে দিনে উল্টে মদ্য পানে ব্যাক্তির সংখ্যা বেড়েই চলেছে, পাশাপাশি পুরুষের সাথে বাড়ছে মহিলাদের সংখ্যাও। তবে জানেন কি অতিরিক্ত মদ্যপান ত্বকের ক্যানসারেরও কারণ হতে পারে? এবার মনে হতেই পারে মদ খেলে তো লিভারে ক্যানসার হওয়ার কথা হঠাৎ ত্বকে কেন? গবেষণাতে উঠে এসেছে এমনই এক তথ্য৷

একদল গবেষকেরা জানিয়েছেন যে অতিরিক্ত মদ্যপানের ফলে শরীরে অর্ধেকেরও বেশি ত্বকের ক্যানসারের প্রাণঘাতী উপাদান উৎপাদন করে৷ গবেষকরা এও জানিয়েছেন যে প্রতিদিন ৩ থেকে ৪ পেগ মদ খেলে শরীরে এমন কিছু জৈবিক পরিবর্তন হওয়া শুরু হয় যার ফলে সুর্যরশ্মিতে শরীর অনেক বেশি সংবেদনশীল হয়ে পড়ে৷  পাশাপাশি দিনে এক পেগ করে মদ পান করলেও মিলানোমা হওয়ার সম্ভাবনা ২০ শতাংশ বেড়ে যায়৷

এক গবেষকের মতে অতি বেগুনী রশ্মি ও অ্যালকোহল শরীরের রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতাকে নষ্ট করে দেয়৷ অতিরিক্ত মাত্রায় ত্বকের কোষ ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং ত্বকে ক্যানসার হওয়ার সম্ভাবনা প্রবলভাবে বেড়ে যায়৷ অবশ্য গবেষকেরা এটাও স্বীকার করেছেন যে, আ্যালকোহল কিভাবে ত্বকে ক্যানসার সৃষ্টি করছে তা তারা এখনও জানতে সক্ষম হননি৷ তবে তারা এটা প্রমাণ করেছেন যে অ্যালকোহল শরীরে প্রবেশ করে দ্রুত অ্যাকটালডেহাইডি তে পরিণত হয়ে ত্বককে সূর্যরশ্মির সামনে অনেক বেশি সংবেদনশীল করে দেয়৷ ফলে বুঝতেই পারছেন যে মদ্য পানের ফলে মানব টক কতোটা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.