ড্রাগন ফ্লাইের মতো দেখতে। পৃথিবীর অবাক করা ৪ টি প্রাণী

নিউজ ডেস্কঃ পৃথিবীর সৃষ্টির পর থেকে এক এক সময় এক এক প্রানীর আবির্ভাব ঘটেছে।এবং তার  পৃথিবীতে রাজও করত।এদের ভয়ে বন্যপ্রাণী থেকে শুরু করে মানুষ অবধি ভয় পেত।তাই এমন কয়েকটি প্রাণী সম্পর্কে জানবেন যা অবলুপ্তি ঘটলেও তার দেহাবশেষ থেকে অনুমান করা যায় যে সেটি কতটা ভয়ানক ও মারাত্মক ছিল।

১)Andrewsarchus: আনুমানিকভাবে এই প্রাণীটি ৩৬-৪৫ মিলিয়ন বছর আগে এই পৃথিবীতে রাজ করত।যার দেহাবশেষ হিসাবে তার মাথা পাওয়া গিয়েছে এই পৃথিবীতে।এর থেকেই বিজ্ঞানীরা অনুমান করেছেন যে এই প্রাণীটির ৬ ফুট উচু ও  ১২ ফুট লম্বা ছিল এবং এই মাথাটি ছিল ৩ ফুট লম্বা।এই মাংসাশী প্রাণীটি ছিল তখনকার সময় একটি ভয়ানক প্রাণীদের মধ্যে একটি।

২) Pelagornis Sandersi: আনুমানিকভাবে এই প্রাণীটি ২৫-৩০ মিলিয়ন বছর আগে পৃথিবীতে এদের আবির্ভাব ঘটে।১৮৫৭ সালে খুঁজে পাওয়া এই পাখির দেহাবশেষের মাধ্যে জানা গিয়েছে যে এই পাখিটি বর্তমানদিনের সবচেয়ে বড়ো পাখি অ্যালবার্ড রোস এর পাখার দৈর্ঘ্য থেকে ২ গুন বড়ো ছিল। আর এদের ওজন ছিল ৩৫-৪০ কেজি এবং এদের ঠোট আজকের দিনের পাখিদের থেকে আলাদা ছিল।এদের খাদ্য ছিল মাছ।

৩) Phorusrhacids: মধ্য অ্যামেরিকায় ১২ মিলিয়ন আগে পাওয়া এই পাখিটির ছোটো বন্য প্রাণীদের আতঙ্কের কারন ছিল।এদের উচ্চতা ছিল ৮ ফুট এবং ওজন ছিল ১৫০ কেজির মতো।এদের বাঁকানো ঠোঁটের মাধ্যমে সহজেই যেকোনো প্রাণীকে চিরে ফেলতে পারত।এরা আবার টেরর বার্ড নামেও পরিচিত ছিল।এরা উড়তে না পরলেও দৌড়াতে পারত খুব ভালো যা একটি ঘোড়াকে হাড় মানানোর ক্ষমতা ছিল।

৪) Meganeura: ১৮৮০ সালে ফ্রান্সে পাওয়া এই পতঙ্গটি এখন পর্যন্ত খুঁজে পাওয়া পতঙ্গের মধ্যে সবচেয়ে বড়ো পতঙ্গ।যাকে অনেকটা আজকের দিনের ড্রাগন ফ্লাই দেখতে।এদের দুটি পাখার দৈর্ঘ্য ছিল ৭৫ সেন্টিমিটার অর্থাৎ ২.৫ ফুট এবং এদের খাদ্য ছিল অন্যান্য কীটপতঙ্গ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.