ক্রিপ্টোকারেন্সি বা ডিজিটাল মুদ্রার শহর কোথায় নির্মিত হতে পারে?

নিউজ ডেস্কঃ সম্প্রতি মধ্য আমেরিকায় অবস্থিত এল সালভাদরের প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেছেন, সে দেশে আগ্নেয়গিরির পাদদেশে একটি সম্পূর্ন নতুন বিটকয়েন শহর গড়ে তোলার পরিকল্পনা চলছে। এই গোটা প্রকল্পের অর্থায়নে ব্যবহৃত হবে ক্রিপ্টোকারেন্সি। রাষ্ট্রপতি নায়েব বুকেল তার বক্তৃতায় জানিয়েছেন শহরটি একটি বড় বৃত্তাকার মুদ্রার আকারে লা ইউনিয়নের দক্ষিণ-পূর্ব অঞ্চলে নির্মিত হবে। 

সূত্রের মতে কনচাগুয়া আগ্নেয়গিরির ভূ-তাপীয় শক্তি ব্যবহার করে এই শহরে অবস্থিত বিটকয়েন খনিতে প্রয়োজনীয় শক্তির জোগান দেওয়া হবে। উল্লেখ্য, এল সালভাদর প্রথম এমন এক দেশ যারা সরকারি লেনদেনের ক্ষেত্রে বিটকয়েনকে আইনি ভাবে ব্যবহার করার ছাড়পত্র দিয়েছে।

এল সালভাদর এমনিতেই এক দরিদ্র দেশ। তার ওপর ক্রিপ্টোকারেন্সির অতিরিক্ত ব্যবহারে লাতিন আমেরিকার এই দেশটিতে  অস্থিতিশীলতা এবং মুদ্রাস্ফীতি আসতে পারে আশঙ্কায় প্রেসিডেন্টের ঘোষণার পরেই চারদিকে দেখা দিয়েছে বিক্ষোভের আগুন। 

বিটকয়েন আইনি টেন্ডার হয়ে যাওয়ার ভয়ে  এল সালভাদরের নাগরিকরা নতুন বিটকয়েন আইন নিয়ে দুভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। একদিকে জনগণের একাংশ যেমন খবর শুনে স্পষ্টতই আপ্লুত সেখানে বাকিরা আবার শঙ্কিত!

শনিবার গভীর রাতে উপকূলীয় শহর মিজাতাতে বিটকয়েনের এক প্রচারমূলক ইভেন্টে উত্তেজনাপূর্ণ ভিড়কে আশ্বস্ত করে, প্রেসিডেন্ট মিঃ বুকেল জানিয়েছেন পরিকল্পিত নতুন শহরে ” অন্তর্ভুক্ত করা হবে সবকিছু।” কিন্তু কি এই সবকিছু? ৪০ বছর বয়সী মিঃ বুকেলের মতে “আবাসিক এলাকা, বাণিজ্যিক এলাকা, পরিষেবা, জাদুঘর, বিনোদন, বার, রেস্তোরাঁ, বিমানবন্দর, বন্দর, রেল – বাদ যাবে না কিছুই; এই সবকিছুই হবে বিটকয়েনের জন্য উৎসর্গীকৃত,”। 

বেসবল ক্যাপ পরে মঞ্চে উপস্থিত হওয়া রাষ্ট্রপতিকে এদিন বলতে শোনা যায়- নতুন শহরে বসানো হবে না কোনো আয়কর, কেবলমাত্র মূল্য সংযোজন( ভ্যাট) করা হবে।তিনি জানিয়েছেন এখান থেকে অর্জিত রাজস্বের অর্ধেক ব্যবহার করা হবে “শহর গড়ে তুলতে” আর বাকিটা রাস্তাঘাটগুলি “পরিচ্ছন্ন ও পরিষ্কার” রাখতে।

সাধারণত অত্যাধুনিক কম্পিউটার ব্যবহার করে জটিল কিছু গাণিতিক সমস্যা সমাধানের মাধ্যমে বিটকয়েন এবং অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সির মাইনিং করা হয়। এটি একদিকে যেমন ব্যয়বহুল ও কঠিন তেমনি প্রচুর পরিমাণে শক্তির ও অপচয় হয় এর প্রক্রিয়াকরণে।

মিঃ বুকেল শহরটির নির্মাণকার্য শুরু হওয়া বা সমাপ্তি কোনো কিছু নিয়েই সঠিক কোনো সময়কাল ঘোষণা না করলেও জানিয়েছেন গোটা শহরটি সম্পূর্নরূপে তৈরি করে জনগণের বসবাসযোগ্য করে তুলতে খরচ হবে আনুমানিক প্রায় ৩০০,০০০ বিটকয়েন খরচ হবে।

একটি বিটকয়েন বর্তমানে মাত্র ৬০,০০০ ডলারের (£৪৫,০০০) নিচে ট্রেড করছে।

সেপ্টেম্বর মাসে, এল সালভাদর মার্কিন ডলারের পাশাপাশি লেনদেনের মাধ্যম হিসাবে ভার্চুয়াল মুদ্রাকেও সরকারি ভাবে চালু করে।

সেই সময়ে, সরকার প্রত্যেক নাগরিককে  ৩০ ডলার(£২২) বিটকয়েনের প্রদান করে একটি নতুন ডিজিটাল ওয়ালেট অ্যাপ প্রকাশ্যে এনেছিলো।বর্তমানে সারা দেশে প্রায় ২০০- এরও বেশি নতুন ক্যাশ মেশিন ইনস্টল করা হয়েছে।

সরকার অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং চাকরি বাড়ানোর এক কৌশল হিসেবে এটিকে উপস্থাপন করলেও রাষ্ট্রপতির এই পদক্ষেপ এল সালভাদরের জনসাধারণকে ভবিষ্যৎ নিয়ে এক বড়ো প্রশ্নচিন্হের সামনে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে।নতুন আইন পাস করার অর্থ হলো এবার থেকে যাবতীয় ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলো ডিজিটাল কয়েনকে অর্থ প্রদানের মাধ্যম হিসাবে গ্রহণ করতে বাধ্য৷

কিন্তু, চিন্তার পারদ বাড়ছে কারণ বিটকয়েন যথেষ্ট বিতর্কিত এক মুদ্রা। এর মূল্য অল্প সময়ের মধ্যেই উল্লেখযোগ্যভাবে ওঠানামা করতে পারে –  গত এক বছরেই নাটকীয়ভাবে এর মূল্যে দেখা গেছে উত্থান এবং পতন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.