ঝর্ণা দিয়ে জলের বদলে আগুন আসে কোন পার্ক দিয়ে?

নিউজ ডেস্ক – প্রকৃতির লীলা বোঝা কোন ব্যক্তির পক্ষে সম্ভব নয়। প্রকৃতি কখনো শান্ত কখনো প্রেমিক অথবা কখনো চন্ডাল রূপও ধারণ করে। কিন্তু এবারে এক আশ্চর্য হওয়ার প্রকৃতির রূপ যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের ইয়োসোমাইট ন্যাশনাল পার্কে। কারণ  ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ দুই সপ্তাহে মাত্র সাত থেকে দশ দিন গোধূলি লগ্নে মাত্র দশ মিনিটের জন্য এই দৃশ্য দেখা যায়।

জানা যায় এই পার্কে জলের বদলে ঝর্ণা দিয়ে অনুসরণ হয় আগুনের। আর এই আগুন ঝরনা দেখতেই প্রত্যেক বছর ফেব্রুয়ারি মাসে ভিড় জমায় বহু পর্যটক। এমনকি মাঝে মাঝে এখানে চারশোর বেশি অস্থায়ীভাবে কিছু পর্যটক থেকেও গিয়েছে। এই আগুন ঝড়নার পেছনেও রয়েছে এক প্রকৃতির ক্রিয়া-কলাপ। ২৩ বছর ধরে গার্ডেনে কর্মরত স্কট গিডিম্যান জানান, আগুন ঝর্নায় আদতেও কোন আগুন ঝরে না এখান থেকে। কারণ ফায়ার ফল হতে গেলে বেশ কয়েকটি প্রাকৃতিক উপাদানের সমন্বয় ঘটতে হয়। প্রথমত ইয়োসমাইটিতে ঝর্না তৈরি হওয়ার মত পর্যাপ্ত বরফ জমতে হবে। দ্বিতীয়ত সেই বরফ গলার মত পর্যাপ্ত তাপমাত্রা বিরাজ করতে হবে। নতুবা বরফ গলবে না। 

তৃতীয় জিনিসটি হলো সূর্য। কারণ ফায়ার ফল হতে হলে মেঘমুক্ত আকাশে সূর্যের প্রখর রশ্মি থাকতে হবে। কারণ এই সূর্য রশ্মিই আগুনের ঝরনা তৈরির মূল উপাদান। অর্থাৎ বরফ, সূর্য এবং আকাশ- এই তিনটি যখন ফেব্রুয়ারির শেষ দুই সপ্তাহে প্রকৃতির নিয়ম মেনে ঠিকঠাক কাজ করে তখনই কেবল হর্সটেইল জলপ্রপাত দিয়ে আগুনের রঙের পানি বের হয়। যার কারণে প্রকৃতির এই মনোরম দৃশ্য দেখতে প্রতিবছর ফেব্রুয়ারি মাসের ছুটে আসে বহু পর্যটক। 

Leave a Reply

Your email address will not be published.