যে নদীতে ডুব দিলে স্বশরীরে ফিরতে পারা প্রায় অসম্ভব ব্যাপার। কোন দেশে রয়েছে?

নিউজ ডেস্ক –  ছোটবেলায় কমবেশি সকলের ভূগোল পড়ে জেনেছেন যে পৃথিবীর জলভাগের পরিমান রয়েছে ২।  অর্থাৎ পৃথিবীপৃষ্ঠের ২ ভাগ জল সম্পদে আবৃত। যার কারণে প্রকৃতির সৌন্দর্য আরো কয়েকগুণ বাড়িয়ে তুলেছে এই নদনদী। বিভিন্ন নদী যেমন গঙ্গা, দামোদর ও ভাগীরথী এক একটি বিখ্যাত ঐতিহাসিক নদী রয়েছে পৃথিবীর বুকে। এদের যেমন রয়েছে সৌন্দর্য তেমনি রয়েছে কিছু ইতিহাস। বহু মানুষ আজও নদীতে স্নান করতে পছন্দ করেন। গঙ্গা নদীতে রীতিমতো ডুব দিলে তাদের পূণ্য লাভ হবে এমনটাই মনে করেন অনেকে। কিন্তু যেমন নদীর ভালো দিক আছে তেমনি রয়েছে এক রহস্যময় খারাপ দিক। স্পেনের এমন একটি নদী রয়েছে যেখানে ডুব দিলে স্বশরীরে ফিরতে পারা প্রায় অসম্ভব ব্যাপার। এই নদীটির নাম হল রিও টিনটো। 

স্পেনের দক্ষিণ পশ্চিম দিয়ে বয়ে যাওয়া এই নদীটি আন্দালুসিয়া পর্বতের পাদদেশে অবস্থিত  সৌন্দর্য দৃষ্টি করার মতো। একবার যে ব্যক্তি এই নদীটিকে দেখবে তারই সৌন্দর্যের রানী নদীতে ডুব দেওয়ার বাসনা জাগে। কিন্তু এখানেই রয়েছে মৃত্যুফাঁদ। যদিও নদীতে মৃত্যুর কারণের পেছনে রয়েছে যথেষ্ট বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা। বহু মানুষ নদীতে স্নান করতে গিয়ে মৃত্যু হওয়ার পর এই বিষয়ে গবেষণা করেছে বিশেষজ্ঞরা। তারা নদীর জল পরীক্ষা করে জানতে পেরেছেন অত্যধিক মাত্রায় রয়েছে আল্মিক  অ্যাসিড। যার পিএইচ অর্থাৎ খাড়ের  মাত্রা ১.৭-২.৫‌ এবং এটি ভারী ধাতু সমৃদ্ধ। পাশাপাশি এতে রয়েছে ফেরিক আয়রন। বিজ্ঞানীদের মতে প্রায় পাঁচ হাজার বছর আগে মাইন খননের সময় উৎপন্ন হওয়া নদী থেকে বহুবার কপার তোলা হয়েছে। এই নদীর মাইন শক্তি এতটাই যে এর আশেপাশে অবস্থিত  গ্রামকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। মাইন খননের জেরে একাধিক পর্বতকে গ্রাস করেছে এই নদী। তাই দূর থেকেই এই নদীর সৌন্দর্য উপভোগ করে সাধারন মানুষ। কাছে গিয়ে তাকে স্পর্শ করার অনুমতি দেওয়া হয় না সরকার থেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.