শুষ্ক চুলের আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে পারে। ঘি এর ৫ টি কাজ

দুপুরবেলা গরম ভাতে একটুখানি ঘি পড়লে খাওয়াটা যেন জমে যায় ।পরোটা থেকে শুরু করে যে কোন খাবারে একটুখানি ঘি পেলে স্বাদ ই যেন যায় পাল্টে ।আর সেই ঘি চুলের যত্নে ?হেডলাইন টা পড়েই অবাক হয়ে গেছেন তো ?অবাক হবেন না ঠিকই পড়েছেন ।ড্যামেজ চুলের যত্নে ঘি অসাধারণ কাজ দেয় ।ঘি এর মধ্যে থাকা ভিটামিন গুলি চুলের বৃদ্ধি ঘটাতে ও ড্যামেজ স্ক্যাল্পের উন্নতিতে কাজ দেয় ।অথচ আমাদের মধ্যে বেশির ভাগ ই ঘি এর এই ব্যবহার গুলি সম্পর্কে অবগত নয় ।আসুন আজ জেনে নেই চুলের  যত্নে কি কি উপায়ে ঘি ব্যবহার করা যায় সে সম্পর্কে ।

১| শুষ্ক চুলের আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনে

শুষ্ক চুল সামলানো বড়ই দুর্বিষহ ব্যাপার ।আর শুধু যে সামলানোর অসুবিধা তাই নয় দেখতেও শুষ্ক চুল লাগে খুব ই দুর্বল ও নির্জীব।এক্ষেত্রে চুলের আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে চাইলে ঘি এর সাথে অল্প পরিমাণে মধু মিশিয়ে ভালো করে গোটা চুলে লাগাতে হবে ।নিয়মিত সপ্তাহে এক থেকে দুবার এই প্যাকটি চুলে লাগালে চুলের রুক্ষ ও খসখসে ভাব গায়েব হয়ে চুল হয়ে উঠবে মোলায়েম কারণ ঘিয়ে থাকা ভিটামিন গুলি চুলে পুষ্টির জোগান দেয়।

২| চুলের ঔজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে

দূষণ ক্ষতিকারক সূর্যরশ্মি ত্বকের সাথে সাথে আমাদের চুলের স্বাস্থ্যের ও দফারফা করে ছাড়ে ।আর ড্যামেজড ত্বকের আমরা যতটা যত্ন নিন চুলের যত্ন কিন্তু সেভাবে নেওয়া হয় না ফলে চুল হয়ে ওঠে আর ও নির্জীব ।আর আপনার চুলের ও যদি এই একই হাল হয়ে থাকে কিন্তু চুলের যত্ন নেওয়ার সময় থাকে কম  তাহলে ব্যবহার করে দেখতে পারেন ঘি ।ঘিয়ে থাকা ভিটামিন এ ও ডি নির্জীব চুলে আবার জেল্লা ফিরিয়ে আনে । 

এর জন্য বেশী কিছু করতে হবে না শুধু প্রত্যেকদিন স্নানের আগে কিছুক্ষণ স্কাল্প ছাড়া গোটা চুলে ভালো করে ঘি মাখিয়ে রাখুন কিছুক্ষণ ।তারপর ভালো করে শ্যাম্পু দিয়ে বা জল দিয়ে  ধুয়ে ফেলুন চুল । দেখবেন চুল হয়ে উঠেছে নরম।

৩| চুলের ডগা ফাটা, চুল পড়ার মতো সমস্যা দূর করতে

আমাদের অনেকেরই চুলের ডগা ফাটা বা চুল পড়ার মতো সমস্যা দেখা দেয় ।এর মূল কারণ কিন্ত স্ক্যাল্পের দুর্বল স্বাস্থ্য ।আর তাই স্ক্যাল্পের যত্ন নেওয়ার জন্য ব্যবহার করতে পারেন  ঘি।  তেলের বদলে ঘি মাথায় ম্যাসেজ করলে ঘি এ থাকা ভিটামিন ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট স্ক্যাল্পের শুষ্কতা দূর করে এবং রক্তসঞ্চালন বৃদ্ধি করে মাথায় ।ফলে চুল হয়ে ওঠে শক্ত ও মজবুত ।

৪| চুলের দ্রূত বৃদ্ধি ঘটায়

লম্বা চুল চাই অনেকেই অথচ চুলের দৈর্ঘ্য বাড়তে যায় না কিছুতেই ।বাজার চলতি কত প্রোডাক্টটি না ব্যবহার করা হয় শুধু সেই আশায়। তবে, একগাদা টাকা এইজন্য খরচ না করে ব্যবহার করে দেখুন ঘি ।প্রত্যেকদিন স্নানের আগে মাথায় ভালো করে ঘি ম্যাসাজ করলে চুলের বৃদ্ধি দ্রুত হতে থাকে।

৫| কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করে

চুল নিয়মিত কন্ডিশন করা চুলের যত্নের এক খুবই গুরুত্বপূর্ণ অংশ ।নামিদামি অনেক কন্ডিশনার আমরা ব্যবহার করি এই জন্য ।কিন্তু এগুলির প্রত্যেকটিতেই থাকে ভরপুর রাসায়নিক ।দীর্ঘদিন ব্যবহারের ফলে যা ক্ষতি করতে পারে চুলের ।আর তাই বাজার থেকে কন্ডিশনার না কিনে মাথায় প্রত্যেকদিন ঘি মেখে একটা শাওয়ার ক্যাপ পড়ে সারারাত রেখে দিয়ে দেখুন ।পরদিন সকালে ভালো করে শ্যাম্পু করে নিলেই দেখবেন চুল হয়ে উঠেছে অনেক বেশি নরম ও মোলায়েম ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.