পুরুষের অভাবে মা হতে পারছেনা মেয়েরা পৃথিবীর কোন দেশের মেয়েরা?

নিউজ ডেস্ক –    গোটা দুনিয়ায় নারী-পুরুষের ভারসাম্য প্রায় সমান রয়েছে বলে অনুমান করা যায়। তবে অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছিল নারীর থেকে পুরুষের সংখ্যা বেশি।  কিন্তু ইউরোপে এমন বেশ কয়েকটি দেশ রয়েছে যেখানে মহিলাদের থেকে পুরুষের সঙ্গে এতটাই কম যে পুরুষের অভাবের সংসার করতে পারছিনা বহু মহিলা। অর্থাৎ সেই দেশ গুলিতে প্রায়  ৫০ শতাংশ মতো  ঘাটতি দেখা দিয়েছে পুরুষদের। তাই নারী-পুরুষের এক ভারসাম্যহীনতা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে সেখানে। 

গণনা করে দেখা গেছে এই সকল দেশ গুলি হল  রাশিয়া , লাটভিয়া, বেলারুশ, লিথুনিয়া, আর্মেনিয়া এবং ইউক্রেন।  এবার সংখ্যার নিরিখে লাটভিয়ায়  ১০০ জন পুরুষের মধ্যে নারীর সংখ্যা  ১১৮.০, লিথুনিয়াতে  ১০০ জন পুরুষের মধ্যে নারীর সংখ্যা ১১৭.২, আর্মেনিয়ার ক্ষেত্রে ১০০ জনের মধ্যে ১১৫.৫, রাশিয়াতে  ১১৫.৩ এবং বেলারুশে ১১৫.২ ও সর্বশেষে ইউক্রেনে ১০০ জন পুরুষের মধ্যে নারীর সংখ্যা ১১৫.৮৭। কিন্তু প্রায় দুই দশক হতে চলল বাল্টিক রাষ্ট্র লাটভিয়া পুঁজিবাদী রাষ্ট্রে পরিণত  হয়েছে। কিন্তু সে ক্ষেত্রে পুরুষের তুলনায় মেয়েদের এগিয়ে যাওয়ার চিত্র দুষ্যমান । কারণ এই শহরে দেখা গিয়েছে নারীদের গড় জীবন পুরুষদের তুলনায় ১১ বছরের অধিক।  সুতরাং সেই ক্ষেত্রে ব্যাপক পার্থক্যের ফারাক দেখা দিয়েছে।  যদিও এই পার্থক্য বেশি পরিলক্ষিত হয় লাটভিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ে। কারণ সেখানে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে ৫০ শতাংশ বেশি রয়েছে মেয়েরা। 

নারী-পুরুষের পার্থক্যের প্রসঙ্গে সমাজবিজ্ঞানী বাইবা বেলা নিজের বক্তব্য রেখে জানিয়েছেন, এই দেশগুলোতে মেয়েরা যে বয়সে সংসার করা শুরু করে সেই সময়ে অধিকাংশ মৃত্যু হয় ছেলেদের। তবে এই মৃত্যু স্বাভাবিক মৃত্যুর চার গুণ। কারণ হিসেবে দেখা যাচ্ছে হয় ছেলেরা আত্মহত্যা করছে কিংবা রোড  অ্যাক্সিডেন্ট, মাদকাসক্তি এবং কর্মক্ষেত্র দুর্ঘটনার মেয়েদের থেকে ছেলেদের উপর বেশি প্রভাব ফেলছে।  তাই এই সকল দেশ গুলিতে নারী থেকে পুরুষ সংখ্যা অত্যাধিক কম।  যদিও বিষয়টি ভাবাচ্ছে সম্প্রতি সরকারকে। 

Leave a Reply

Your email address will not be published.