‘‌ওকিকু’‌। ভৌতিক পুতুলটির চুল প্রতি বছর বৃদ্ধি পাচ্ছে। পৃথিবীর কোন দেশে গেলে দেখতে পাবন?

নিউজ ডেস্কঃ পুতুল আমাদের সবার প্রিয় আর এই ছোট ছোট। আর এরা দেখতে এতো সুন্দর যে পছন্দ না হয়ে যায় কোথায়? ছোটরা যেমন পুতুল নিয়ে খেলতে ভালবাসে ঠিক তেমনি অনেকেই পুতুল দিয়ে বাড়ি সাজাতে বেশ পছন্দ করেন। তবে এই পুতুল নিয়েও মাঝে মাঝে শোনা যায় নানা অদ্ভুতুড়ে কথা। অনেকে মনে করেন যে অদৃশ্য আত্মারা নাকি পুতুলকে অনেক সময় তাদের আস্তানা বানায়। ভুতুড়ে পুতুলের কথাও শোনা যায় মাঝে মাঝে,এমনকি তা নিয়ে হয়ে গেছে বিভিন্ন সিনেমাও।কিন্তু এই সমস্ত ঘটনা সত্যি হোক বা না হোক অলৌকিক এরকম এক পুতুলের খোঁজ কিন্তু সত্যিই পাওয়া গেছে।

মিষ্টি জাপানি মেয়ের মত দেখতে এই পুতুলের নাম ‘‌ওকিকু’‌। পরনে জাপানি পোশাক এবং উচ্চতা প্রায় 40 সেন্টিমিটার।দেখতে অতি সুন্দর এই পুতুলকে প্রথম এক ঝলক দেখলে একদম স্বাভাবিক এক পুতুলের মতই মনে হয়। কিন্তু একে সাধারণ ভাবলে ভুল করবেন।

ওকিকুর পরিচিতি ভৌতিক পুতুল হিসেবে। শোনা যায়, ১৯১৮ সালে এক তরুণ তাঁর দু’‌বছরের বোন ওকিকুর জন্য পুতুলটি কিনে আনেন। বছর ঘুরতে না ঘুরতে ছোট্ট মেয়েটি মারা গেলে এই পুতুলের মধ্যে দেখা যায় এক অদ্ভুত পরিবর্তন। দেখা যায়, পুতুলের চুল জীবন্ত মানুষের মতো ক্রমেই বেড়ে চলেছে।

প্রথমে তার চুল ছিল কাঁধ পর্যন্ত লম্বা কিন্তু আশ্চর্যজনক ব্যাপার হল প্রতি বছরই তা বেড়ে যায়। আবার কেটে দেওয়া হয়। তার পর আবার বড় হয়ে যায়।ওকিকুর মৃত্যুর পরে পুতুলটিকে তার সঙ্গে সমাহিত করা হয়নি। বরং তাকে পাঠানো হয় জাপানের হোক্কাইডো দ্বীপের ইওয়ামিজাওয়া শহরের মান্নেনজি মন্দিরে, ১৯৩৮ সালে পরিবারটি অন্য জায়গায় চলে গেলেও ওকিকু কিন্তু থেকে যায় মান্নেনজি মন্দিরেই। স্থানীয়দের বিশ্বাস, শিশু ওকিকুর আত্মাই বাস করে পুতুল ওকিকুর ভিতরে।

৪০ সেন্টিমিটারের এই পুতুল দেখতে মিষ্টি হলেও স্থানীয়দের মতে তার চোখের দিকে তাকালে নাকি অস্বস্তি হয়। শুধু স্থানীয়রাই নয় মন্দিরের অন‍্যান‍্য পর্যটকরা সকলেই এ রকমটাই জানিয়েছেন।তবে, প্যারানর্মাল বিশেষজ্ঞদের মতে, ওকিকু ভৌতিক হতে পারে, কিন্তু ভয়ঙ্কর নয়।অ্যানাবেলের মতো প্রতিহিংসা পরায়ণও নয়। বর্তমানে, ১০০ বছর বয়স হয়ে গেছে ওকিকুর। তবে,এখনও এই পুতুলকে দেখতে ভিড় করেন পর্যটকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.