বিজ্ঞানীর মতে ভিনগ্রহী জান নেমেছিল। রাশিয়ায় রহস্যময় গর্ত

নিউজ ডেস্ক – পৃথিবীতে বহু আশ্চর্যকর জিনিস রয়েছে। কিন্তু তাদের মধ্যে অন্যতম জিনিস হল রাশিয়ার উত্তর সাইবেরিয়ায় আচমকাই গজিয়ে ওঠা বিশাল  আকৃতির গর্ত। এসকল গর্ত গুলি ১০০ ফুট পর্যন্ত চওড়া  এবং ৬০ ফুট পর্যন্ত গভীর হয়। এই গর্ত সম্পর্কে এখনো পর্যন্ত কোনো ধারণা দিতে পারেনি বিশেষজ্ঞরা। নানা মুনির নানা মতের মতো গর্ত নিয়ে জল্পনা-কল্পনা সৃষ্টি হয়েছে বহু। কোন বিজ্ঞানীর হিসেবে গর্তের মূল কারণ অনুসন্ধান করতে সক্ষম হননি।

কনো বিজ্ঞানীর মতে উল্কার  কোন অংশ পড়ায় তার থেকে গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। যদিও পরবর্তীতে মাটির গর্ত তৈরি করে ভূগর্ভে ঢুকে যায় উল্কা গুলি। বিজ্ঞানীর মতে ভিনগ্রহী জান নেমেছিল এই অংশে। যার কারণে গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। যদিও এই সকল বিজ্ঞানীদের মতবাদে কোন শক্তি না থাকায় এটি ধোপে টেকেনি।

যদিও এক বিজ্ঞানী বলেছিলেন যে এই গর্তগুলো সৃষ্টি হওয়ার পেছনে রয়েছে প্রাকৃতিক গ্যাস নির্গমন। অর্থাৎ গর্ত হওয়া অংশগুলোতে প্রচুর পরিমাণে মিথেন গ্যাস জমে ছিল। যার কারণে সাইবেরিয়ায় ক্রমাগত বাড়তে থাকা তাপমাত্রায় গ্যাসের আয়তন বৃদ্ধি পাওয়ায় একদিন সেটি বিস্ফোরণ ঘটায় গর্তের সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে গর্তগুলোর থেকে মিথেন গ্যাসের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া গিয়েছে। যদি বাস্তবে মিথেন গ্যাসের কারণে গর্ত সৃষ্টি হয়ে থাকে তাহলে এই জিনিসটি পৃথিবীর জন্য খুবই চিন্তিতকর বিষয়। কারণ পৃথিবীপৃষ্ঠে মিথেন গ্যাসের পরিমাণ বৃদ্ধি পেলে পৃথিবী ধ্বংসের কারণ হতে পারে।

কমবেশি সকলেই জানেন যে বিশ্ব উষ্ণায়নে গ্যাসের মূল উপাদান হচ্ছে কার্বন ডাই অক্সাইড ও মিথেন গ্যাস। যার কারণে সাইবেরিয়ার প্রতিনিয়ত তাপমাত্রা বৃদ্ধির পেছনে রয়েছে বিশ্ব উষ্ণায়ন। এই গ্লোবাল ওয়ার্মিংয়ের জেরে প্রতিনিয়ত বরফ গলে জলে পরিণত হচ্ছে। যার কারণে কার্বন-ডাই-অক্সাইড শোষণ করার ক্ষমতা রাখা বরফ গলে জলে পরিণত হয়ে পরিবেশে বৃদ্ধি পাচ্ছে কার্বন ডাই অক্সাইডের মাত্রা। তাই খুব শীঘ্রই গর্তগুলো সঠিক কারণ অনুসন্ধান করা না গেলে আগামী দিনে গর্তগুলো বরফ গলা জলে পরিণত হওয়ার পর সেটি অনুসন্ধান করা অসম্ভব হয়ে দাঁড়াবে বিজ্ঞানীদের পক্ষে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.