দৈহিক শক্তি বৃদ্ধি করতে খাদ্যতালিকায় যে ধরনের খাওয়ার রাখবেন

নিউজ ডেস্ক – বর্তমানের দৌড়ঝাপের জীবনে সময় বের করে নিজের শরীরচর্চা করার মতো খুব একটা সুযোগ পায় না মানুষ। সেক্ষেত্রে অল্প কাজ করলেই সহজেই ক্লান্ত হয়ে পরেন অনেকে। কিন্তু বর্তমানে এমন উপায় রয়েছে যেখানে শরীরে মেদ জমবে না অথচ সঠিক পরিমাণে শক্তি বৃদ্ধি পাবে। সেক্ষেত্রে দৈহিক শক্তি বৃদ্ধি করতে খাদ্যতালিকায় বেশ কিছু খাবার রাখা অত্যন্ত জরুরী। 

গবেষণায় দেখা গিয়েছে খাবারের তালিকায় দুধ ,ডিম ও মধু রাখলে  এবং প্রতিনিয়ত নিয়ন্ত্রণের মধ্যে  সেবন করলে দৈহিক দুর্বলতা কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসে। যে খাবারগুলো খাওয়া অত্যন্ত উপকারী সেগুলি হল – 

১) কলা – কলায় রয়েছে ভিটামিন এ,বি,সি ও পটাশিয়াম। ভিটামিন বি ও পটাশিয়াম শরীরের শক্তি বাড়ায়। কলায় উপস্থিত ব্রোমেলিয়ান মানুষের শরীরের টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। এছাড়াও কলায় প্রচুর পরিমাণে শর্করা থাকার কারণে মানব শরীরে শক্তি বৃদ্ধি করে।  

২) ডাল  – ডালে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকার কারণে মানব শরীরে শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে।  

৩) বাদাম – শক্তির উৎস বাড়ানোর জন্য অন্যতম উপাদান হলো বাদাম।  এক্ষেত্রে আখরোট, কাজু বা পেস্তা বাদাম খাওয়া যেতে পারে। 

৪) মাংস – জিঙ্ক যুক্ত মাংস খাওয়া প্রয়োজন। গরুর মাংসের প্রচুর পরিমাণে জিঙ্ক থাকে।

৫) মধু – অনেকেরই জানা রয়েছে মধুতে শারীরিক দুর্বলতা হ্রাস পায়। তাই প্রতি সপ্তাহে অন্তত ৩-৪ দিন এক গ্লাস গরম জলে এক চামচ খাঁটি মধু খেলে শরীরের শক্তি বৃদ্ধি হবে।  

৬) দুধ  – যেসব খাবারে বেশি পরিমাণে প্রাণিজ ফ্যাট রয়েছে সেই প্রাকৃতিক খাদ্য গুলি খাওয়া যায়। এক্ষেত্রে খাঁটি দুধ ,দুধের সর, মাখন ইত্যাদি খাওয়া যেতে পারে। তবে যারা চাইছেন দৈহিক শক্তির হরমোন বৃদ্ধি করতে, তাদের প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট খেতে হবে। যদিও সব ফ্যাট হতে হবে প্রাকৃতিক।  

৭) ভিটামিন সি জাতীয় ফল – সুস্থ হোক কিংবা অসুস্থ শরীর স্বাস্থ্য ভালো রাখতে গেলে খাদ্যতালিকায় একটি করে ফল রাখা অত্যন্ত জরুরী। যেমন -আঙ্গুর, কমলা লেবু ,তরমুজ ,পিচ ইত্যাদি ফল গুলি শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। 

৮) চকলেট  – চকলেটের রয়েছে ফেনিলেথিলামিন ও সেরোটোনিন। তবে শুধু চকলেট নয় এই দুটি পদার্থ মানুষের মস্তিষ্কে রয়েছে। তাই এই চকলেট  শক্তির মাত্রা বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে। এছাড়াও ফেনিলেথিলামিনের সঙ্গে অ্যানিন্ডামাইড যুক্ত হয়ে অরগাজমে পৌঁছাতে সাহায্য করে। 

৯) ডিম  – শক্তি বৃদ্ধি করার অন্যতম উপাদান হলো ডিম। প্রতিদিন সকালে কিংবা সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন  একটি করে ডিম খেলে দুর্বলতা কেটে যাবে। ডিম প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার হওয়ার কারণে কাজে এনার্জি বৃদ্ধি করে। 

১০) পালং শাক – পালং শাকে আয়রন, পটাসিয়াম থাকার কারণে এটি শরীরের শক্তি বৃদ্ধির অন্যতম উৎস। 

১১)  রসুন – বহু পূর্ব থেকেই আয়ুর্বেদিক মতানুসারে রসুনকে শক্তি বৃদ্ধির জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এছাড়াও রসুনে রয়েছে  এলিসিন নামক উপাদান। যেটা মানুষের শরীরে ইন্দ্রিয় গুলোতে রক্তপ্রবাহ করতে সাহায্য করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.