কোন দেশের রাজার ১২৫ জন স্ত্রী আছে জানেন?

নিউজ ডেস্ক   –    সম্প্রতি একজনের বেশি বিবাহিত স্ত্রী থাকা যেকোনো দেশেই বেআইনি বলে মানা হয়। কিন্তু এখনো পর্যন্ত দক্ষিণ আফ্রিকার সোয়াজিল্যান্ডে  কোন সরকারি শাসন চলে না। সেখানে এখনো রাজ রাজাদের রাজতন্ত্র বিদ্যমান।  বর্তমানে আফ্রিকার এই দেশের রাজভার সামলাচ্ছেন রাজা কিং এমসাতি  তৃতীয়।  তার অবশ্য বিবাহিত স্ত্রী সংখ্যা নিজের পিতার মতো শতাধিক না ছাড়ালেও বর্তমানে রয়েছে ১৬ জন। এবং সকলের সন্তানদের মিলিয়ে বর্তমান রাজার সন্তান হচ্ছে ৩৫ জন।   না বর্তমানে উপস্থিত রাজা মাত্র তার ১৮ বছর বয়সে  ১৯৮৬ সালে রাজ ভার গ্রহণ করেছিলেন । এরপরই প্রতিবার একজন কুমারী মেয়েকে বিয়ে কড়াই বর্তমানে তার স্ত্রীর সংখ্যা  ১৬।   জোজো তাদের মধ্যে তিন জনকে ইতিমধ্যে ডিভোর্স দিয়ে দিয়েছিলেন রাজা।  

লোকো ভাষ্যমতে কিং এমসাতি  তৃতীয়ের  পিতা সাবেক রাজা সভুজা  দ্বিতীয় নিজের শাসনকালে ১২৫ জনের বেশি নারীকে বিবাহ করেছিলেন। এখনো পর্যন্ত সেই রিদ্রয়ে গিয়েছে সেই দেশে। তবে বিবাহের ক্ষেত্রে কন্যা পছন্দ করার মধ্যে রয়েছে বেশকিছু রেওয়াজ। 

এক্ষেত্রে পূর্বসূরীদের মতানুসারে রাজারা বিবাহের পূর্বে দেশের সমস্ত কুমারী মেয়েদের লুদজিদিনি  রয়েল ডিফেন্সে নিয়ে আসা হতো।  এরপরই সেখান থেকে তাদের এনগাবেজওয়ানি  রয়্যাল রেসিডেন্টে নিয়ে আসা হতো।  সেখানে সকল মেয়েদের কুমারিত্বের প্রতীক হিসাবে ছুরি হাতে নিয়ে একটি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে হতো। কার্যত অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতেন শতাধিক পদ্ধতি সহ স্বয়ং রাজা।  এর পরেই সেই অনুষ্ঠানে সকলের অংশগ্রহণ করে তাদের পদযাত্রায় অংশগ্রহণ করতে হতো। এরপরই যে রমণী অধিক সুন্দর ও আকর্ষণীয় তাদের মধ্যে একজনকে বেছে নিতেন রাজা।  বিষয়টি বর্তমানে আজব ও অপ্রীতিকর মনে হলেও বাস্তবে সেই ঘটনা ঘটত এবং এখনো ঘটে চলে।  এই নিয়মে সেই দেশের মেয়েদের বিবাহ এবং রাজারা নিজেদের রানীর সংখ্যা বৃদ্ধি করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.