শুধু জমজ বাচ্চা জন্ম হয় ভারতবর্ষের কোন রাজ্যে?

নিউজ ডেস্কঃ প্রকৃতি বড়ই রহস্যময় । পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে এমন অনেক কিছু ঘটনা ঘটে যার ব্যাখ্যা সবসময় বিজ্ঞান ও দিতে পারে না ।মানুষের মনে এই সমস্ত ঘটনাবলি যেমন সৃষ্টি করে বিভ্রান্তি তেমনি সৃষ্টি করে কৌতুহল ও ।দেশ-বিদেশে এরকম অসংখ্য অদ্ভুত জায়গার কথা শোনা যায়,ঠিক ই যাদের কেন্দ্র করে রয়েছে আনেক রহস্য। তবে স্বয়ং ভারতেই এমন এক অদ্ভুত গ্রাম আছে তা কি জানতেন ? 

কেরালার কোধিনি নামক গ্রামটি এরকমই রহস্যময় এক জায়গা। আর এই রহস্যের কারণটিও বেশ অদ্ভুত। ব্যাপারটা হল ,এই গ্রামে বসবাস করা প্রায় সকলেই যমজ। এই গ্রাম গ্রামে কখনো ঘুরতে গেলে দেখে অবাক হবেন যে চারিদিকে জোড়ায় জোড়ায় মানুষ ঘুরছে ।

যেখানে সমগ্র বিশ্বে গড়ে এক হাজার মানুষের মধ্যে মোটে এক জোড়া যমজ সন্তান জন্মানোর সম্ভাবনা থাকে সেখানে কেরালার কালিকট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে 15 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এই গ্রামে বসবাস করা 2000 জন বাসিন্দার মধ্যে দুশ কুড়ি জোড়া যমজ। অর্থাৎ জনসংখ্যার প্রায় 42%। আর এই ঘটনা এতটাই অদ্ভুত যে শুধু ভারতের নয় সমগ্র বিশ্বের মানুষের ই কৌতুহল বেড়েছে এই গ্রাম নিয়ে। অনেকে একে “টুইন গ্রাম” নামেও ডাকতে শুরু করেছেন। এখানে নন আইডেন্টিক্যাল টুইন থেকে শুরু করে আইডেন্টিক্যাল টুইন সব ধরনের যমজ ভাইবোন ই দেখতে পাওয়া যায় ।

এমনকি 2008 সালেও গ্রামটিতে 15 জোড়া যমজ শিশুর জন্ম হয় ।কিন্তু এই গ্রামে প্রতিবছর এত সংখ্যায় যমজ শিশু জন্মানোর কারণ কি ?এই নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন ।বিশেষজ্ঞরা এর কারণ খুঁজে বের করার আপ্রাণ চেষ্টা করলেও কোন সঠিক উত্তর খুঁজে পাওয়া যায়নি ।জানা যায় এই গ্রামে প্রথম যমজ শিশু জন্মগ্রহণ করে 1949 সালে । অদ্ভুত ব্যাপার হলো  এরপর থেকেই নাকি এখানে যমজ শিশু জন্মানোর সংখ্যা ক্রমশ বেড়ে চলেছে প্রতি বছর।এর সঠিক কোন উত্তর খুঁজে পাওয়া না গেলেও বিশেষজ্ঞদের একাংশ মনে করেন জিনগত কারণ এবং গ্রামের পরিবেশে এই যমজ শিশু জন্মানোর প্রধান কারণ। তবে, কারণ যাই হোক এই অদ্ভুত ঘটনার সাক্ষী হতে দেশ-বিদেশ থেকে প্রতিবছর বেশকিছু পর্যটক এই গ্রামে ঘুরতে আসেন। অনেকে এটিকে প্রকৃতির এক অদ্ভুত বিস্ময় বলে আখ্যা দিলেও  এটি এখনো এক অমীমাংসিত রহস্য হিসেবেই রয়ে গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.