কেন রাতের বেলাতেই কুকুর কাঁদে?

নিউজ ডেস্কঃ আমাদের সমাজে নানা ধরনের ধারনার প্রচলন রয়েছে তার মধ্যে একটি হল রাতের বেলায় কুকুরের কান্না অশুভের প্রতীক। এই ধারনাটি বহুকাল ধরে মানুষের মনে মধ্যে বাসা বেঁধে আছে। রাতের বেলায় কুকুর কাঁদলে মনে করা হয় যে কোন অশুভ কিছু ঘটতে চলেছে এমনটি বলতে গুরুজনেরা। কিন্তু এইরকম ধারনার প্রচলন কেন হয়েছে? আর এই বিষয়টি কি সত্যি? এই আধুনিক যুগে অনেকে মানুষের মনে মধ্যে এমন প্রশ্নটা জাগে। আর এটায় স্বাভাবিক।কারন এখনকার দিনে সংস্কারকে অন্ধের মতো বিশ্বাস না করে তার পিছনের থাকা কারনটি সবাই জানতে চাই।তাই এই প্রচলিত সংস্কারের পিছনের থাকার আসল কারনটি জেনে নিন।

জ্যোতিষীদের মতে, কুকুর কাঁদের যখন তাদের আশেপাশে আত্মারা ঘুরে বেড়ায়।সাধারণ মানুষেরা আত্মাদের দেখতে পায় না কিন্তু কুকুর তাঁদেরকে দেখতে পায়।আর যার জন্যই তাঁরা কেঁদে উঠে।

বিজ্ঞানীদের মতে, আমরা যেটাকে কুকুর কাঁদার আওয়াজ বলি সেটা  আসলে কুকুরের কান্নার  নয়। তারা রাতের বেলায় তাঁদের দূরে থাকা সঙ্গীদের ডাকার জন্য ব্যবহৃত করা একটি ডাক। এই ডাকের মাধ্যমে তারা দূরের সঙ্গীদের কাছে কোন বার্তা  পৌঁছানোর চেষ্টা করে এছাড়াও এইরকমভাবে আওয়াজ করে তার অবস্থানটা সঙ্গীদেরকে জানিয়ে দেয়।

দ্বিতীয়ত, কুকুরের আঘাত লাগলে তা থেকে তাদের শরীরে ব্যাথা  হয়।আর এই কষ্টের কথা সঙ্গীদের জানাতে তারা ওইরকমভাবে ডাকে।

তৃতীয়ত, কুকুরেরা কখনও একা থাকতে পছন্দ করে না।তাই তারা যখন একা হয়ে যায় তখন তারা তাদের  সঙ্গীদের ডাকার জন্য ওইরকমভাবে ডাকে। 

জ্যোতিষ এবং বিজ্ঞানীদের মধ্যে দ্বন্ধ চলতেই থাকে।যার কোন সমাধান আজ পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।তাই অনেকে জ্যোতিষীদের কথা বিশ্বাস করে আবার অনেকে বিজ্ঞানীদের কথা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.