মহিলাকে খুন করে মাথার ঘিলু দিয়ে ভাত খাওয়ার মতো কাজ করেছিল। কোন দেশের ঘটনা জানেন?

নিউজ ডেস্ক – কোন নরখাদক বা জন্তু সামনে কোন রক্ত-মাংসের তৈরি মানুষকে দেখা মাত্রই তাকে নৃশংসভাবে হত্যা করে তার মাংশ খেয়ে নেওয়ার ঘটনা শোনা গিয়েছে প্রচুর। তবে এক এমন চাঞ্চল্যকর ঘটনা প্রকাশ্যে আসলো যা দেখে গায়ের লোম খাড়া হয়ে যায় মানুষের। এমনকি হতবাক হয়ে গিয়েছেন খোদ প্রশাসন। ঘটনাটি অনেকটা এই রকম যে এক মহিলাকে মেরে তার মাথার ঘিলু ভাতের সঙ্গে মেখে খেয়ে নিয়েছিল এক যুবক। 

বেশ কিছু মাস আগ পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ফিলিপিন্সে জনবসতিপূর্ণ এলাকায় এক মহিলার নগ্ন মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশ কর্তারা। কার্যত অজ্ঞাত পরিচিত এই মহিলাকে কিভাবে খুন করেছে তার ঘটনা খতিয়ে দেখতে তদন্তে নামে পুলিশ। তদন্তে নামার পরেই একে একে প্রকাশ্যে পায় চাঞ্চল্যকর সব তথ্য। এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত এক যুবককে গ্রেফতার করে তদন্তকারী দল।

পরবর্তীতে যুবককে প্রাথমিক জেরা করে গোয়েন্দা বিভাগের কর্মীরা জানতে পারেন  তার নাম লয়েড ব্যাঙটঙ। বয়স মাত্র ২১। মাত্র ২১ বছর বয়সী এক যুবক কি করে এমন নৃশংস হত্যা করতে পারে তার গল্প অভিযুক্ত যুবক নিজের মুখেই স্বীকার করেছেন। ধৃত যুবক জানিয়েছিলেন, একদিন রাতে এক মহিলা তার কাছে এসে ইংলিশে কথা বলছিল। কার্যত সেই সময় যুবক মদ্যপ অবস্থায় এবং বড় ক্ষুধার্ত ছিল। যার কারণেই কথা শুনে মাথা গরম হয়ে গিয়ে ধারালো অস্ত্র (রামদা) দিয়ে তার মাথায় আঘাত করে তাকে প্রথমে খুন করে, তারপরে মাথাটাকে কুচি কুচি করে কাটে। তবে এতেও ক্ষান্ত হয়নি সে। পরবর্তীতে মহিলার মৃতদেহ বাড়িতে নিয়ে গিয়ে তার কুচি করা মাংস ভাত দিয়ে মেখে নিজের ক্ষুধা নিবারণ করেছিলো অভিযুক্ত যুবক। 

যুবকের এমন কর্মকান্ড দেখে অবাক হয়েছেন খোদ পুলিশ প্রশাসন। পাশাপাশি অভিযুক্তকে দেখে রীতিমতো আতঙ্ক ছড়িয়েছে গোটা এলাকায়। তবে অজ্ঞাত মহিলা কে কোথা থেকে এসেছে তা জানা যায়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.