ভারতবর্ষেই রয়েছে আদিম মানুষের বংশধর। জানুন বিস্তারিত

নিউজ ডেস্ক – পৃথিবী গঠনের সময় প্রথম প্রাণী যাবে সৃষ্টি হয়েছিল এককোষী প্রাণী অ্যামিবার। এরপরেই কাল ক্রমে সেটি উন্নত হতে হতেই প্রথমে আদিম মানুষ তারপর সাধারণ মানুষের সৃষ্টি  হয়েছিল। কালের পরিবর্তনে সেই আদিম প্রজাতির ‌ মানুষেরা হারিয়ে গিয়েছে, বহু যুগ ধরে এটি মেনে আসছেন সকলে। কিন্তু না তাদের ধারণা সম্পূর্ণ ভুল। আজও পাহাড়ি এলাকা গুলিতে আদিম মানুষের বংশধরদের দেখতে পাওয়া যায়। এই সকল আদিম মানুষ হল ডেনিসোভান প্রজাতির মানব। 

প্রত্নতত্ত্ববিদেরা একাধিক দেশ ঘুরে ঐতিহাসিক সকল নিদর্শন পর্যবেক্ষণ করে জানতে পেরেছেন ডেনিসোভান প্রজাতির মানুষরা মূলত এশিয়া মহাদেশে বসবাস করলেও পরবর্তীকালে এরা পৃথিবীর অন্যান্য জায়গায় ছড়িয়ে যায়। সম্প্রতি সেই একইরকম জীবাশ্ম পাওয়া গিয়েছে তিব্বতের ওই মালভূমি অঞ্চল থেকে। প্রায় ১৬০,০০০ বছরের পুরনো কিন্তু তাও শক্ত দাঁত এবং হাড়ের অংশ থেকে বোঝা যায় সেই এই প্রজাতির নেদারল্যান্ডের একাধিক জায়গায় তাদের অবাধ বিচরণ ছিল।  এই মানব জাতিরা  সংখ্যাগরিষ্ঠ  সম্প্রদায়ের ছিল। তবে যে এলাকাগুলি থেকে এদের দেহাবশেষ পাওয়া গেছে সেগুলো ছিল বড়ই উচ্চ বাসস্থান। সেখানে সাধারণ মানুষদের থাকা প্রায় দুর্লভ।

বিশেষজ্ঞদের গবেষণা অনুযায়ী বর্তমান পৃথিবীর যে তাপমাত্রা প্রাচীন যুগের তাপমাত্রা ছিল প্রায় – ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সেই হাড় হিম করা ঠান্ডা হয়ে থাকা কোন প্রাণীর পক্ষে সম্ভব নয়। তবে বর্তমানে প্রাপ্ত আদি মানবের দেহাবশেষের ডিএনএ টেস্ট করার পাশাপাশি পাহাড়ি এলাকার শেরপা এবং তীব্বতি জনগোষ্ঠীর মানুষদের ডিএনএ টেস্ট করে বিশেষজ্ঞরা জানতে পেরেছেন যে সেই সকল পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর  মধ্যেও কয়েক হাজার বছর আগেকার মানবপ্রাণী  ডেনিসোভানদের সঙ্গে মিল রয়েছে। 

Leave a Reply

Your email address will not be published.