আগে যখন বাড়িতে মিষ্টি তৈরি করা হতো তখন কমলালেবুর খোসা দিয়ে দুধ দিয়ে ছানা তৈরি হতো

নিউজ ডেস্ক  –   যুগের যতই  পরিবর্তন ঘটুক না কেন  এমন কিছু জিনিস থাকে যেগুলো কোনদিনই পরিবর্তন ঘটে না। তাদের মধ্যে এক অনন্য হলো মিষ্টি। বাঙালির যে কোন উৎসব অসম্পূর্ণ মিষ্টি ছাড়া। বিয়ে হোক কিংবা অন্নপ্রাশন অথবা শেষকৃত্যের কাজ সবটাতেই খাওয়ার শেষ পাতে  মিষ্টি চাই চাই।  তবে পূর্বে মা কাকিমারা নিজেরাই বাড়িতে মিষ্টি বানানো।  সেই চল ২১ শতাব্দীতে এসে উঠে গিয়েছে।  যাইহোক বর্তমানে দোকান থেকে মিষ্টি কিনে নিজেদের স্বাদ মিটাচ্ছি মানুষ।  

বাঙালির পুরনো ঐতিহ্যের অন্য সকল মিষ্টির মধ্যে একটি হলো কমলাভোগ।  এই নামকরা কমলালেবুর খোসা থেকে। আগে যখন বাড়িতে মিষ্টি তৈরি করা হতো তখন কমলালেবুর খোসা দিয়ে দুধ দিয়ে ছানা তৈরি হতো। এরপর সেই ছানা মসৃণ করে বেটে নিয়ে কমলালেবুর রস দেওয়া হতো। এবং সর্বশেষে সেই ঝানাকে গোলাকার মসৃণ করে নিয়ে মিষ্টির রস দেওয়া হতো। তারপরে সবার পাতে পড়তো কমলাভোগ। তবে এই মিষ্টির স্বাদ বাড়াতে এর উপর থেকে লবঙ্গ, কেশর ,পেস্তা ছড়িয়ে দিতো অনেক সময়।  কিন্তু বাড়ির মত নিখুঁতভাবে এখন আর তৈরি হয় না কমলাভোগ। 

বর্তমানের দোকানের যেসকল মিষ্টি কিনতে পাওয়া যায় বিশেষ করে কমলাভোগ ব্যবসার খাতিরে মিষ্টি তৈরি করতে অনেক সময় কমলালেবুর বদলে রং ছড়িয়ে দেওয়া হয়।    তবে পশ্চিমবঙ্গের সব জায়গায় কমলাভোগ পাওয়া গেলেও বিখ্যাত ও সুস্বাদু কমলাভোগ পাওয়া যায় মাদারিহাটে।  লোকো ভাষ্যমতে পশ্চিমবঙ্গের উত্তরের ডুয়ার্স এবং তরাই অঞ্চল থেকে বাংলায় ছড়িয়ে পড়েছিল কমলাভোগ। তবে এখন শুধু বাংলায় নয় বাংলার বাইরেও যথেষ্ট নাম হয়েছে এই মিষ্টির।

Leave a Reply

Your email address will not be published.