শারীরিক মিলনের পর কপালে গাঢ় চুম্বন। সুখ বৃদ্ধিতে কে কাজ গুলি করা উচিৎ

নিউজ ডেস্ক  –   অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা গেছে অনেক প্রভাবশালী ব্যক্তিদের অর্থ বিলাসিতা থাকলেও জীবনের সুখ শান্তির অভাব রয়েছে বড্ড। তাদের কাছে অর্থ প্রাচুর্য থাকতে পারে কিন্তু ছোট্ট একটা জিনিস ভালোবাসার  কাঙ্গাল তারা। সুতরাং সেই ক্ষেত্রে জীবনের বেশ কিছু ছোট ছোট জিনিস যেগুলো মেনে চললে অর্থ কম থাকলেও  সুখকর হতে পারে জীবন। 

যেমন — দাম্পত্য জীবনে সুখ শান্তি বজায় রাখতে হলে স্ত্রীর সঙ্গে শারীরিক মিলনের পর তার কপালে একটি গাঢ় চুম্বন করতে হবে। সেক্ষেত্রে দৃঢ় হবে ভালোবাসা।   পাশাপাশি গর্ভবতী স্ত্রীদের বেশি করে দেখভাল করতে হবে।  তাদের মাসিক চলাকালীন সব কথা শুনতে হবে। কারণ সেই সময় প্রতিটি মেয়েদের ক্ষেত্রে দুর্বল মুহূর্ত থাকে। দুজনে ব্যস্ততম সময়ের মধ্যে থেকেও একে অপরকে সময় দিতে হবে।  ঘুমন্ত অবস্থায় স্ত্রী সুন্দর্য উপভোগ করতে হবে।  স্ত্রীর হিপ্সে চিমটি কাটতে হবে। রান্নাঘরে কাজের সময় পেছন থেকে জড়িয়ে ধরতে হবে।  স্বল্প স্পর্শে যাতে নিজের সঙ্গী তাকে চিনতে পারে তার জন্য ঘাড়ের চুল সরিয়ে সেখানে গভীর চুম্বন করতে হবে।  

অন্যদিকে আবার স্ত্রীর পাশাপাশি মাকে সুখী রাখতে গেলে মায়ের জন্মদিনে তাকে মন্দির কিংবা যে যে ধর্মের যেখানে নিয়ে যেতে হবে।  মায়ের গালে ভালবাসার চিহ্ন দিতে হবে। বৃদ্ধদের সম্মান করতে হবে।  বাবা-মার বিবাহবার্ষিকী সারপ্রাইজ উপহার দিতে হবে।  প্রতিবেশীর ছোট শিশুদের চকলেট কিংবা কোন গিফট দিতে হবে।  সর্বদা বৃদ্ধ ও নারীদের সম্মান করতে হবে। এইসকল ছোটখাট জিনিস গুলো মেনে চললে জীবন সুখকর হতে বাধ্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published.