আমাদের একটি আঙ্গুলে চারটি জয়েন্ট থাকে। যা আমাদের আঙ্গুলকে নড়াচড়া করতে সহায়তা করে

নিউজ ডেস্ক: আঙুল ফোটানোর অভ্যাস অনেকেরই আছে। কিন্তু যারা আঙ্গুল ফোটান তারা কি কখনো ভেবে দেখেছেন যে এটা করা উচিত কি উচিত নয়। হয়তো নিজের অজান্তে ক্ষতি ডেকে আনছেন। তাই অভ্যাস থেকে বিরত থাকা উচিত কি উচিত নয় এবং তার ফলে কি কি হতে পারে সবটাই জেনে নিন বিশেষজ্ঞদের থেকে।

কথায় আছে যে অতিরিক্ত কোনো কিছুই করা ভালো নয় তাই অতিরিক্ত আঙ্গুল ফোটানো ভালো নয়।কারন এর থেকে অনেক ক্ষেত্রে মারাত্মক ক্ষতির কারণ হতে পারে।তাই আমাদের এই অভ্যাসটি ত্যাগ করা উচিৎ। 

আমাদের একটি আঙ্গুলে চারটি জয়েন্ট থাকে। যা আমাদের আঙ্গুলকে নড়াচড়া করতে সহায়তা করে। কিন্তু  আমরা যখন প্রয়োজনের অতিরিক্ত আঙ্গুল ফোটাই তখন আঙ্গুলের অস্থিসন্ধির অভ্যন্তরীণ আর্টিকুলার কার্টিলেজের ক্ষয় বৃদ্ধি পায়। যার ফলে বাত রোগ- অষ্টিওআর্থ্রাইটিসের মতো সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। এর থেকে নানা ধরনের সমস্যা যেমন- আঙ্গুলের জোড়ায় ব্যথা হওয়া, আঙ্গুলের জোড়াগুলো ফুলে যাওয়া ইত্যাদি দেখা দেয়। বিশেষ করে যাদের  অনস্টিওআর্থ্রাইটিসে সমস্যা আছে বা যাদের অস্টিওপোরোসিস বা হাড়ের ক্ষয় রোগ আছে এবং হাড়ের ঘনত্ব কমে গেছে, তাদের পক্ষে  আঙ্গুল ফোটালে খুবই ক্ষতিকারক কারন এর ফলে তাদের  আঙ্গুলে ফ্রাকচার হতে পারে বা আঙ্গুলের হাড় ভেঙে যেতে পারে।

আঙুল ফোটালে হাড়ের কোন ক্ষতি হয় কিনা তা জানতে ক্যালিফোর্নিয়ার এক চিকিৎসক আনগার ৬০ বছর ধরে নিজের ওপর একটি পরীক্ষা চালিয়েছেন। এই পরীক্ষার জন্য রোজ নিয়ম করে তিনি বাঁ হাতের আঙুল ফুটিয়েছেন তবে ডান হাত ধরেননি। আর এই পরীক্ষার ফলাফল হিসেবে  দুই হাতের মাঝে কোনো পার্থক্যই খুঁজে পাননি ডক্টর আনগার।তবুও আঙ্গুল ফোটানোর থেকে নিজেদেরকে বিরত রাখার ভালো। আর যদি আঙুল ফোটান তাহলে তা  অতিরিক্ত ফোটানো উচিৎ নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.