গ্রাম ভর্তি সুন্দরী কুমারী মেয়েদের পাত্রের অভাবে বিবাহ হচ্ছেনা

নিউজ ডেস্ক বিয়ে হচ্ছে একটি সামাজিক রীতি। যেখানে একটি পুরুষ ও একজন নারী পবিত্র বন্ধনে আবদ্ধ হয়।  তবে এমন একটি গ্রাম রয়েছে যেখানে বিয়ের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে মেয়েরা। এই গ্রামের সকল মেয়েরাই অপ্সরার থেকে দেখতে কিছু কম নয়। কিন্তু তারপরও মিলছে না ছেলে যার কারণে কুমারী হয়েই রয়ে গিয়েছেন তারা। এমন গ্রামটি হলো দক্ষিণ-পূর্ব ব্রাজিলের নোওয়া ডে করডেরিয়ে। এখানে সকল মেয়েদের বয়স আনুমানিক ১৮- ৩০শের মধ্যে।  এই গ্রামের সকল মেয়েরা শিক্ষিত ও স্বাবলম্বী হওয়ায়  শর্ত রয়েছে যে সকল পুরুষ এই গ্রামের মেয়েদের বিয়ে করবে তাদের এই গ্রামেই থাকতে হবে। যদিও এর নেপথ্যে রয়েছে কিছু গল্প। 

জানা যায় ১৮৯০ সালে মরিয়া সেলেনা নামের এক মেয়েকে জোর করে বিয়ে দেওয়া হয়। যদিও পরবর্তীতে পারিবারিক অশান্তি কারণে নিজের শ্বশুর বাড়ি ছেড়ে দক্ষিণ-পূর্ব ব্রাজিলের নোইভা ডো করডেরিয়ো গ্রামটি ১৯৯১ সালে  নির্মাণ করে বসবাস করতে শুরু করেন তিনি। বর্তমানে এই গ্রামের  জনসংখ্যা রয়েছে ৬০০ জন কুমারী মেয়ে। যাদের মধ্যে ৩০০ জন নারী তাদের পছন্দমতো স্বাবলম্বী পুরুষদের ইতিমধ্যেই বিয়ের প্রস্তাব পাঠিয়েছে। কিন্তু শর্ত থাকার কারণে অধিকাংশ মেয়েরাই আজও কুমারী। তবে নিজের কুমারিত্ব বদলাতে ও নারীত্বের স্বাদ গ্রহণ করতে অধিকাংশ ক্ষেত্রে তারা বিবাহিত পুরুষকে বিয়ে করে নেয়। কিন্তু এই সকলের পরেও তারা নিজেদের গ্রাম ছাড়তে অনড়। বর্তমানে স্বামী খোঁজার মধ্যে দিয়েই দিন কাটে এই গ্রামের কুমারী নারীদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published.