মুসলিম ধর্মে কেমনে কোনদিনও বোরখা নিজেদের ঢাকেননি‌ তারা। কোন দেশের মহিলারা?

নিউজ ডেস্ক – সমাজ। এমন একটি জায়গা যেখানে সর্বত্রই নারীদের পদদলিত করে আসা হচ্ছে এবং প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে পুরুষদের। যার কারণে আজ সমাজে নারীদের কোন অস্তিত্ব না থাকায় এটি পুরুষতান্ত্রিক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তবে এমন কিছু অঞ্চল রয়েছে যেখানে পুরুষদের পাশাপাশি মহিলাদেরও যথার্থ সম্মান দেওয়া হয়। এমনকি যারা মহিলাদের সম্মান দেয় না সে সকল মহিলারা সমাজের বেড়াজাল ভেঙে নিজেদের সম্পদ আদায় করে থাকেন। এরকমই এক জায়গার হদিস পাওয়া গিয়েছে উত্তর আফ্রিকার সাহারা মরুভূমির তুয়ারেগ মালি, লিবিয়া, আলজেরিয়া, চাদ নামের একাধিক  উপজাতির মধ্যে। এখানে মূলত যে সকল মহিলারা বসবাস করে তারা সকলেই মুসলমান সম্প্রদায়ের। তবুও মুসলিম ধর্মে কেমনে কোনদিনও বোরখা নিজেদের ঢাকেননি‌ তারা। তাই আজ সমাজে পুরুষের পায়ে পা মিলিয়ে চলে এসকল মহিলারা। 

তুয়ারেগ শহরে নজর দিলে দেখা যায় সেখানকার কোন মহিলা নিজেদের আড়াল করে না। এর কারণ জিজ্ঞাসা করতে জানে তারা জানিয়েছেন, সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ তাতেই যথেষ্ট রূপ দিয়ে তৈরি করেছে। তাই সৃষ্টিকর্তা তৈরি এইরূপ আড়াল করে রাখতে চান না তারা। এছাড়াও পুরুষদের আকর্ষণ করতে প্রয়োজন এমন ধারালো রুপেরই। পাশাপাশি শুধু তারা সকল বেড়াতে গেছে তাই নয়। ‌ এখানকার সকল নারী নিজেদের মধ্যে বিবাহবিচ্ছেদ করে অন্য পুরুষের সঙ্গে সম্পর্ক রাখতে পারে। এমনকি অবিবাহিত মেয়েরা নিজের ইচ্ছা মতো একাধিক পুরুষের সঙ্গে যৌনসম্পর্ক জড়িত হতে পারে। সকলেই অবগত থাকার পরেও গোষ্ঠীর কোন মানুষকে অসম্মান করতে পারে না। কারণ এখানে মহিলাদের  অসম্মান করলে বা তাদের জীবনে হস্তক্ষেপ করলে শাস্তি হিসেবে মেলে মৃত্যু। তাই কোনো বিধিনিষেধ না থাকায় কোনো সরকারি পক্ষ থেকেও কোনো বেড়াজালে মেয়েদেরকে না ফেলার জন্য আজ স্বাধীনভাবে  নিজেদের জীবন অতিবাহিত করতে পারে এই গোষ্ঠীর মহিলারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.