টেরাজোনবাসীদের মান্যতা অনুযায়ী মৃতদেহ কবর থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে ঘোরালে আত্মীয়দের সঙ্গে মৃত ব্যক্তির একটি আত্মজ সম্পর্ক বজায় থাকে

নিউজ ডেস্ক  ভালোবাসা এমনই একটি অনুভূতি যার জন্য গোটা বিশ্বের সঙ্গে লড়ে যেতে পারে কোন মানুষ। আবার  এই ভালবাসায় অবনতির একমাত্র পথ হয় অনেক মানুষের কাছে। কিন্তু  এমন একটি দেশ রয়েছে যেখানে ভালোবাসার জন্য মৃত মানুষকে কবর থেকে তোলা। যদিও পরে আবার সেই শবদেহকে পুনরায় স্থাপন করেন তাদের আত্মীয় পরিজনেরা। সেই শহরটির নাম হল ইন্দোনেশিয়ার দক্ষিণ সুলাওয়েসির তোরাজা গ্রাম। 

আদিবাসী এই গ্রামের বাসিন্দাদের রেওয়াজ অনুযায়ী সমাধিস্থ ব্যক্তিকে রীতি মেনে ঠিক আগস্ট মাসে তাদের সমাধি থেকে তুলে একজন সুস্থ সবল মানুষের মতো তাদের নতুন পোশাক পরিয়ে, ব্রাশ করিয়ে, রীতিমতো চুল আঁচড়িয়ে যে স্থানে তাদের মৃত্যু হয়েছে সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর সেখান থেকে ঘুরিয়ে নিয়ে আসার পর আবার কবরে সমাধি দেওয়া হয়। এমন অদ্ভুত কান্ড করার পেছনে রয়েছে একটি বিশেষ মান্যতা।

টেরাজোনবাসীদের মান্যতা অনুযায়ী মৃতদেহ কবর থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে ঘোরালে আত্মীয়দের সঙ্গে মৃত ব্যক্তির একটি আত্মজ সম্পর্ক বজায় থাকে। পাশাপাশি পরিবারের সঙ্গে সেই সকল ব্যক্তিদের সম্পর্ক কখনো ভাঙে না। তবে এখন প্রশ্ন হচ্ছে  দীর্ঘদিনের মৃতদেহ কি করে ভালো থাকে? তার জন্য গ্রামবাসীরা এমন এক ধরনের কেমিক্যাল ব্যবহার করে মমি তৈরি করে যার কারণে দীর্ঘদিন যাবত কোন বিকৃতি ছাড়াই মৃতদেহের মমিগুলি ভালো থাকে। শুধুমাত্র প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে নয় যেকোনো মৃত মানুষের ক্ষেত্রেও শিশুদের মমি তুলে তাদের স্নান করিয়ে নতুন পোশাক পরিয়ে হাতে পুতুল নিয়ে ঘুরিয়ে আনা হয়। যুগ যুগ ধরে চলে আসছে এমন প্রচলিত নিয়ম যা বর্তমানেও মেনে চলে গ্রামবাসীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.