সর্দি- কাশি হলে ঠান্ডা লাগলে আদা খেলে কমে যায় কারণ আদায় থাকে আন্টি- ইনফ্লেমেটরি উপাদান যাতে গলা ব্যাথার উপশম কম করে

নিউজ ডেক্স: আদা। প্রত্যেকের রান্নাঘরে পাওয়া যায় এমন এক আনাজ। সবাই অ্যান্টিবায়োটিক বলে মনে করে থাকলেও প্রাচীনকাল থেকে শোনা যায় আদার গুন সমৃদ্ধিশালী। এখনো মানুষ আদাকে ব্যবহার করে আসছে। সকলেরই জানা আদা সর্দি কাশির জন্য খুবই উপকারী। আরো বিভিন্ন কারণে আদা ব্যবহার করা হয়।

আদা  মসলা জাতীয় পণ্য। এই পণ্য সব মসলার মতই দ্রুত কাজ করে। সর্দি- কাশি হলে ঠান্ডা লাগলে আদা খেলে কমে যায় কারণ আদায় থাকে আন্টি- ইনফ্লেমেটরি উপাদান যাতে গলা ব্যাথার উপশম কম করে।

যাদের কাশির কারণে গলা ব্যথা করে তারা মুখে এক টুকরো আদা নিয়ে থাকলে সেটি আস্তে আস্তে চিবালে গলা ব্যথা আস্তে আস্তে কমে যায়। যাদের খুব প্রচন্ড গলা ব্যথা করে তাদের  চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া দরকার।

যদি গলা ব্যথা তাড়াতাড়ি কমানো যায় তাহলে আদা টিকে কুচি কুচি করে গরম জলে ৫মিনিট রাখার পর ছেঁকে খেয়ে ফেলতে হবে আর যদি কেও চা খুব ভালোবাসে তাহলে তার সাথে মিশিয়ে খেতে পারে সেটা আরও খুব উপকারী হয়ে ওঠে, এর সাথে অনেকে মধু দিয়েও খেতে পারে। এর থেকে শুধু যে আদা জল খাওয়াই সবথেকে ভালো এতে তাড়াতাড়ি রিলিফ পাওয়া যায়। আদাজল খেলে বমি বমি ভাব, প্রদাহ,শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা দূর করে থাকে।

আদা আবার মুখের দুর্গন্ধ দূর করে। যাদের মুখে প্রচন্ড গন্ধ হয়ে থাকে তারা প্রতিদিন একটি করে আদা খেতে পারে এর ফলে তাদের মুখের দুর্গন্ধ দূর হয়ে যাবে। শরীর স্বাস্থ্য আরো  সচেতন রাখতে হলে  নিয়মগুলো মেনে চলতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.