চার্চ থেকে শুরু করে মসজিদ। রাশিয়ার কোন নেতা মাটিতে মিশিয়ে দিয়েছিলেন জানেন?

ওয়েব ডেস্কঃ বিশ্বের সবচেয়ে নিষ্ঠুর শাসকের মধ্যে এডলফ হিটলারের অবস্থান সবার শীর্ষে। এরপরই রয়েছেন জর্জিয়ান জোসেফ স্ট্যালিন। ইতিহাস সোভিয়েত ইউনিয়নের এ নেতার ভয়ঙ্কর সব অত্যাচারের সাক্ষী হয়ে আছে। রুশ ভাষায় ‘স্ট্যাল’ অর্থ ইস্পাত ‘স্ট্যালনোই’ অর্থ ইস্পাত কঠিন! ‘লৌহমানব’ খ্যাত নিষ্ঠুর শাসক জোসেফ স্ট্যালিন।

তার আসল নাম ‘জোসেফ বেসারিওনি জুগাসভিলি’। বহু কমিউনিস্ট বিপ্লবী নেতার মতো স্ট্যালিন হলো তার ছদ্ম নাম।

১৯০৩ সালে লেনিনের বলশেভিকে যোগ দেন স্ট্যালিন। বলশেভিক থেকে তাকে ককেশাস অঞ্চলের বিপ্লবী প্রধানের দায়িত্ব দেওয়া হয়। সেখানে তিনি গুপ্ত আধা-সামরিক বাহিনী গড়ে তোলেন। বিভিন্ন রকমের গুপ্ত হত্যা সহ ব্যাংক ডাকাতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। তিনি ‘তিফিলস’ ব্যাংক ডাকাতির জন্য চরমভাবে নিন্দিত হন।

এ ঘটনায় প্রচুর হতাহত এবং দুই লাখ ৫০ হাজার রুবল বা সাড়ে তিন মিলিয়ন ডলার চৌর্যবৃত্তির জন্য তার রাজনৈতিক ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।১৯২২ সালে লেনিনের প্রথম স্ট্রোকের পর স্ট্যালিন পার্টির প্রায় সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী হয়ে ওঠেন। পরবর্তীতে তিনি লেনিনকে বাইরের পৃথিবী থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন করে ফেলেন।

সেই থেকে স্ট্যালিনের দাম্ভিকতা শুরু। শুরু হয় চরম স্বেচ্ছাচারিতা আর নৃশংসতা। চলে ক্ষমতার শেষ দিন পর্যন্ত।

স্ট্যালিনের পীড়নে সাইবেরিয়া, মধ্য এশিয়া ও ককেশাস অঞ্চলে বহু ধর্মীয় জনগোষ্ঠীর গতানুগতিক জীবন ব্যবস্থা বিধ্বস্ত হয়। কথিত জাতীয়তাবাদী উত্থান দমন অভিযানে সোভিয়েত জনগোষ্ঠীর একটি অংশ উদ্বাস্তু হয়ে নানা দিকে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে। রোমান ক্যাথলিক চার্চ ব্যালস্টি, ইসলাম ও বৌদ্ধ ধর্মসহ অন্যান্য ধর্ম নিগৃহীত হয়। হাজার হাজার চার্চ, ইহুদি, গির্জা, মসজিদ, মন্দির, বৌদ্ধবিহার মাটিতে মিশিয়ে দেওয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.