মশা ছাড়াই কয়েক দশক কাটাচ্ছে কোন দেশ জানেন?

নিউজ ডেস্ক – গোটা পৃথিবীতে কমবেশি সব অঞ্চলে মশার প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। মশা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য বিভিন্ন ধরনের নেট কিংবা স্প্রে বের করেছে বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু তা সত্বেও চোখের আড়াল হতেই কখন মশা আপনাকে কামড়ে চলে যাবে সেটি আমি ধরতেও পারবে না। যার কারণে একটিমাত্র ক্ষুদ্র প্রাণী মশার জন্য আর জর্জরিত গোটা পৃথিবী। কিন্তু পৃথিবীর বুকে এমন একটি দেশ রয়েছে যেখানে বেশ কয়েক যুগ ধরে মশার কোন বংশই দেখিনি স্থানীয়রা। হ্যাঁ ঠিকই ধরেছেন। সবচেয়ে উন্নতির শিখরে থাকা দেশ চীন।  তবে গোটা দেশে নয় চীনের ফুজিয়ান প্রদেশের উইলিং গ্রামে  এই চিত্র দেখা যায়। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৭০০ মিটার উচ্চতায় অবস্থিত এই গ্রামে।  গোটা গ্রামে একটি মাত্র মশা না থাকার জন্য ২০১৬ সালে একবার পত্রিকার প্রথম পাতায় প্রকাশিত হয়েছিল এই রহস্য। তবে সেই বছরের পর সম্প্রতি বিষয়টি নিয়ে মাথাচাড়া দিয়েছে বিজ্ঞানীদের।  

মশা বিশেষজ্ঞরা গ্রামটি পরিদর্শন করেন এটি দেখতে যে কোন কারণে সেখানে মশা নেই। তবে সেখানকার গ্রামবাসীএকদলের মতানুসারে গ্রামে ঢোকার মুখে একটি  বিশেষ ধরনের পাথর হয়েছে।  সুতরাং সেই দেবতার আশীর্বাদের কারণেই গ্রামে কোন  মশার অস্তিত্ব নেই। যদিও গ্রামের অন্য সাড়ির গ্রামবাসীদের মতানুসারে  গ্রামের প্রত্যেকটি মানুষ এতোটাই পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকে  যার জন্য গ্রামে মশা প্রবেশ করতে পারে না।  

যদিও  চীনা সংবাদপত্র পিপলস ডেইলির রিপোর্টার ডিং সম্প্রতি গ্রামটি পরিদর্শন করে  জানান, গ্রামের মানুষরা এতটাই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও গ্রামের ঘরবাড়ি রাস্তা স্বচ্ছ হওয়ার কারণে মশার প্রাদুর্ভাব দেখা যায় না। কিন্তু গ্রামবাসীরা যে ভিন্ন মত পোষণ করে সেটিতেই তারা কায়েম থাকছেন। বিজ্ঞানীদের কথা খুব একটা গ্রাহ্য হয়নি গ্রামবাসীদের  একাংশের কাছে। যাইহোক মশার জ্বালাতন ছাড়া দীর্ঘদিন শান্তিতে বসবাস করতে পারেনি এই গ্রামের বাসীন্দারা। 

Leave a Reply

Your email address will not be published.