নিজেকে ক্ষতবিক্ষত করলেই অপশক্তি দূর হবে। কোন দেশের নিয়ম জানেন??

নিউজ ডেস্ক –গোটা পৃথিবীতে এমন বহু নিয়ম আছে যা সমাজকে রীতিমত অবাক করে দেয়। কোন ধর্মের এক নিয়ম তো অন্য ধর্মের আরেক নিয়ম। এমন ভাবেই চলে আসছে পৃথিবীর অনুশীলন। কিন্তু গোটা বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন ধর্ম  হিন্দু ধর্মে এমন কিছু নিয়ম রয়েছে যা শুনলে রীতিমত কেঁপে উঠবে সকল মানুষ। 

দক্ষিণ ভারত এবং দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় হিন্দু বাসীরা থাইপুশম নামের এমন একটি উৎসব হয় যেখানে অপশক্তির উপর জয়লাভ করে মুরগান নামের তামিলদের দেবতা। এই দেবতার পুজো করা অর্থাৎ থাইপুশম উৎসব পালন করার নিয়ম অনুযায়ী কোন ব্যক্তি পূর্ণ সমাধিতে যাওয়ার আগে তার পিঠে নানা ধরনের হুক আটকে নেয়। এমনকি মাঝেমধ্যে এরা নিজেদের দেহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে। 

দেখা যায় মালেশিয়াতে ২৭২ ধাপের সিঁড়ি সহ নির্মিত মুরগানের মন্দির অবস্থিত রয়েছে। যেখানে দেবতার সামনে নানা ধরনের হুক রাখা থাকে। মন্দিরের মান্যতা অনুযায়ী শিবপত্নী পার্বতী অসুরদের দমন করার জন্য ও তার পুত্র মুরগানকে ধারালো বর্শা দিয়েছিল। যার কারণে সমাজ থেকে অপশক্তি দূর করার জন্য ভক্তরা নিজেদের পিঠে হুক বিদ্ধ করেন, আবার অনেকে সেই হুক দিয়ে গাড়িও টানে।

শুধুমাত্র মালয়েশিয়ায় নয় সিঙ্গাপুরেও এই উৎসবের দৃশ্য দেখা যায়।  পরিসংখ্যান অনুযায়ী মালয়েশিয়ার জনসংখ্যা তিন কোটি ১০ লাখ। যাদের মধ্যে মুসলিম সম্প্রদায়ের সদস্য রয়েছেন সিংহভাগ। তবুও এই দেশে যে সকল ভারতীয় ও চীনারা রয়েছে তারা এই পুজো করেন। তবে ভিনদেশে ভারতীয়দের আগমন মূলত ব্রিটিশ শাসিত দেশ কর্মচারী হিসেবে। তবে যাই হোক  তিথি অনুযায়ী মন্দিরে ঢল নামে ভক্তদের। 

Leave a Reply

Your email address will not be published.