ঘরোয়া রান্না করেই ইউটিউবে জনপ্রিয় হয়েছে বাংলাদেশের কোন গ্রাম?

নিউজ ডেস্ক  –  বর্তমানের ডিজিটাল মাধ্যমে যেমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে হামেসায় নিজের কথা তুলে ধরা যায়। ঠিক সেইভাবেই সামান্য ঘরোয়া রান্নাকে  ইউটিউব এর মাধ্যমে প্রকাশ করে বর্তমানে গ্রামের নাম হয়ে গিয়েছে ইউটিউব ভিলেজ। এরকমই একটি ঘটনা চোখে পড়ে বাংলাদেশের কুষ্টিয়া জেলার শিমুলিয়া গ্রামে। এই গ্রামটি আসল নাম শিমুলিয়া হল এটি বর্তমানে ইউটিউব ভিলেজ বা ইউটিউব গ্রাম নামে পরিচিত।   

বেশ কয়েকদিন আগে রান্নার রেসিপি নিয়ে গ্রামবাসীর কাছে আসি কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলা গ্রামের স্কুল শিক্ষক দেলওয়ার হোসেন! তবে শুধুমাত্র স্কুলশিক্ষক নয় তার সঙ্গে সেখানে উপস্থিত ছিলেন ১৬ জন  গৃহিণী ও ক্যামেরাম্যান সহ প্রায় ৩০ জন। তারা মূলত এসকল গ্রামবাসীদের কাছে বিভিন্ন রান্না যেমন সোনালি মুরগির ঝাল রোস্ট ডিম পোলাও তুলে ধরতে থাকে। সপ্তাহে প্রায় দু-তিন দিন গ্রামের মানুষরা বিনা পয়সায় ভোজন করে থাকে।  এছাড়াও বর্তমানে এই সকল রাধুনী তথা গ্রামবাসীদের রান্নার ড্রেসকোড রয়েছে।  তবে প্রাথমিক দিকে এই গ্রামের রান্না একটি গণ্ডির মধ্যে বন্ধ থাকলেও পরবর্তীতে  সেটি ইউটিউবে প্রকাশ করা হয়।  

২০১৭ সালে  একজন ইউটিউবার লিটন আলী খান শখের বশেই একটি ইউটিউব চ্যানেল খোলে যার নাম অ্যারাউন্ড মি বিডি।   তিনি সর্বপ্রথম গ্রামের মাছ বাজারে ঘুরে সেই ছবি ইউটিউবে আপলোড করতো। পরবর্তীতে ধীরে ধীরে জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাওয়ায় তিনি অল্প অল্প করে গ্রামের রান্না বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরতে শুরু করে। যার মাধ্যমে বেশ ভালো আয় হয় তার।  এরপরে আর্থিক লাভ হওয়ার কাজের আগ্রহ বৃদ্ধি পায় এবং নিজের মামা দেলোয়ার কে নিয়ে শিমুলিয়া গ্রামের মানুষের একত্রিত করে এরপরই শুরু হয় রান্নার পালা।  যথারীতি সাধারণরা মিনান্নার গন্ডির থেকে বেরিয়ে সেখানে তৈরি হয় বিরিয়ানি পোলাও রন্না।  বর্তমানে সেই ইউটিউব চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার প্রায় ২৪ লাখ ছাড়িয়েছে। যার কারণে চ্যানেলটি বিশ্বদরবারে যাওয়ায় বিখ্যাত রিভার সানি সাইট এই গ্রামে এসে ঘুরে গেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.