পৃথিবীতে কোন দেশের মানুষ কাঁচা মাছ খায় জানেন?

নিউজ ডেস্ক:- কোন দেশের মানুষেরা কাঁচা মাছ ও সিদ্ধ মাছ খায় জানেন? দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরের উপকূলে অবস্থিত স্বাধীন দ্বীপ রাষ্ট্র হল ফিজি। দেশটির সরকারের নাম প্রজাতন্ত্রী ফিজি দ্বীপপুঞ্জ। দেশটির রাজধানী তথা বৃহত্তম শহর হল সুভা। এই দেশটির সরকারি ভাষা হল ফিজি হিন্দি। দেশটির মোট আয়তন 18,274 বর্গ কিলোমিটার।

ফিজি দেশ সম্পর্কে কিছু অজানা তথ্য  হল

1. এই দেশটির মানুষেরা তরুণ হওয়ার সাথে সাথে অনেক মানানসই হয়ে থাকে। তাদের ফিট হওয়ার পেছনের কারণ হলো এখানকার পরিবেশ ও সমুদ্র সৈকতে আয়োজিত স্পোর্টিং এভেন্টস।

2. এই দেশটির জাতীয় খেলা হলেও Rahway । এখানে প্রায় প্রতিটি জায়গায় বহু সংখ্যক মানুষ এই গেম খেলতে দেখা যায় যার এবং এর জন্য ও এখানকার মানুষেরা অনেক ফিট হয়ে থাকে।

3. এটি একটি দ্বীপ অঞ্চল হওয়ায় এখানকার সমুদ্রে নানা ধরনের সামুদ্রিক জীব পাওয়া যায় এমনকি এই দেশের জলাভূমিতে এমন কিছু সামুদ্রিক জীব পাওয়া যায় যা অন্য সকল দেশ থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে।

4. এই দেশটিতে চার হাজার স্কয়ার মাইল নিয়ে বিস্তৃত প্রবাল প্রাচীর এর জন্য একে সফট কোরাল ক্যাপিটাল অফ দা ওয়ার্ল্ড। যে দেখার জন্য বহু সংখ্যক টুরিস্ট এই দেশে প্রতিবছর ভ্রমণ করে থাকে।

5. এ দেশের সবথেকে সুন্দর জিনিস হল এখানে প্রতিটি শিশুর স্কুলে যাওয়া অনিবার্য। এখানকার সরকার মনে করে এডুকেশনে ইনভেস্ট করা তাদের ভবিষ্যতে সব থেকে বড় শক্তি হয়ে উঠবে।

6. ফিজি দেশের মানুষদের মধ্যে আমাদের দেশের মতো অন্ধবিশ্বাস ভরপুর হয়ে আছে। এখানে ভারতের মতো তন্ত্র মন্ত্র ও টোটকায় বিশ্বাসী হওয়া।

7. এখানকার মানুষের ধারণা যদি কারোর বাড়ীর সামনে লেবু পড়ে থাকে তাহলে সেটি অশুভ। এবং কেউ যদি বাড়ি থেকে বেরোনোর সময় হাঁচি দিয়ে থাকে তাহলে সে কিছুক্ষণের জন্য সেখানে দাঁড়িয়ে থাকে।

8. এই দেশের তিনটি ভাষায় কথা বলা হয় ইংলিশ, ফ্রিজিয়ান ও হিন্দি। এখানে যদি আপনি কাউকে নামাস্তে বলে সম্বোধন করেন তাহলে সে সেটি বুঝে আপনাকে হিন্দিতেই জবাব দেবে। ভারত থেকে যদি কেউ এই দেশটির ভ্রমণে যায় তাহলে সে বুঝতেই পারবে না যে সে অন্য কোন দেশে আছে।

9. দেশটি অনেকটা ভারতের মতো হলেও এখানে কিছু কিছু জিনিস এর ভিন্নতা লক্ষ্য করা যায় যেমন এই দেশের মানুষেরা কাঁচা মাছ ও সিদ্ধ মাছ খায়। এছাড়া এই দেশের সবথেকে জনপ্রিয় খাবার হলো কোকোরা। দেশটিতে সি ফুড অনেকটা সহজলভ্য।

10. এই দেশে বহু সংখ্যক মন্দির দেখতে পাওয়া যায়। এখানকার বহু সংখ্যক মানুষ হিন্দুধর্মাবলম্বী হওয়ায় এখানে হিন্দু সংস্কৃতি লক্ষ্য করা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.