কেন সরিষার তেল নিষিদ্ধ আমেরিকা, ইউরোপ কানাডার মতো দেশ?

নিউজ ডেস্ক – ভারতে রান্নার অন্যতম একটি উপাদান হিসেবে ব্যবহৃত হয় সরিষার তেল। এটি খাবারের স্বাদ বৃদ্ধি করতে সহায়ক। সে কারণেই অধিকাংশ মানুষের খাদ্যের প্রথম তালিকায় থাকে এই তেল। কিন্তু আমেরিকা ইউরোপ এবং কানাডার মত দেশগুলিতে খাদ্য ও ঔষধ তৈরিতে সরিষার তেল  তেল ব্যবহারে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে সেখানকার প্রশাসন।  যদিও এর জন্য রয়েছে বেশ কিছু কারণ। 

এককথায় সরিষার তেল সরিষার গাছের বীজ থেকে তৈরি হয়। এই তেলের ঝাঁঝালো গন্ধ ও তীব্র মসলাদার হওয়ার জন্য দক্ষিণ এশিয়ার  বহু জায়গায় তরকারিও উদ্ভিজ্জ খাদ্য উপাদান হিসেবে এরই রান্না করা হয়ে থাকে। কিন্তু বেশ কিছু দেশে এই তেল খাবার হিসাবে ব্যবহারের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সেখানকার প্রশাসন। কারণ সরিষার তেলে রয়েছে এরুসিস অ্যাসিড নামের একটি যৌগ পদার্থ।  এই যৌগ পদার্থটি মানব শরীরে ফ্যাটি অ্যাসিড তৈরি করে যার কারণে হৃদপিন্ডে মারাত্মক ক্ষতি হয়।  এছাড়াও সরিষার তেলে মনস্যাচুরেটেড  ফ্যাটি এসিড থাকে।  কারোর শরীরে অল্প মাত্রায় এরুসিস   অ্যাসিড প্রবেশ করলে সেটা নিরাপদ কিন্তু এর মাত্রা অধীক হলেই সেটি বিপদজনক মানব শরীরে।  

প্রাণী শরীরের উপর বৈজ্ঞানিকদের করা গবেষণায় দেখা গিয়েছে দীর্ঘকাল ধরে  এরুসিস  অ্যাসিড প্রবেশ করলে সেটি হৃদযন্ত্রের  ক্ষতি করে এক ধরনের রোগের সৃষ্টি করে যার নাম মায়োকার্ডিয়াল লিপিডোসিস। তবে যেহেতু খাবার হিসেবে সরিষার তেল ব্যবহার করা নিষিদ্ধ তাই আমেরিকা ইউরোপ এবং কানাডার মানুষজন অন্যান্য কাজে সরিষার তেল ব্যবহার করে থাকে।  শুধুমাত্র খাবার ওষুধের ক্ষেত্রে এটি নিষিদ্ধ না হলে অন্যান্য কাজে ব্যবহারের ছাড়পত্র দিয়েছে সরকার ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.