মাশরুমে আছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস এবং ভিটামিন ডি যা শিশুদের দাঁত এবং হাড় গঠনে অত্যান্ত কার্যকারী

এ এন নিউজ ডেস্কঃ মাশরুমের মধ্যে আমিষ, শর্করা, চর্বি, ভিটামিন, মিনারেলস থাকে যা শরীরের ইম্যুনোসিস্টেমকে উন্নত করতে সাহায্য করে থাকে। ফলে গর্ভবতী মায়েরা এবং শিশুরা নিয়মিত খেলে রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। শুধু অসুস্থ মানুষ নয় সুস্থ মানুষরা এটি খেলে রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বারে।

মাশরুমে শর্করা এবং চর্বি কম থাকে এবং আঁশ বেশি থাকে। তাই এটি ডায়বেটিস রোগীদের পক্ষে বিশেষ উপকারি। আঁশযুক্ত খাওয়ার হজম প্রক্রিয়ার জন্য অপরিহার্য।

মাশুরম কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। মাশরুমে আছে ইরিটাডেনিন, লোভাস্টিম এবং এন্টাডেনিন, তাই নিয়মিত খেলে হৃদরোগ ও উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রিত হয়।

মাশরুমে আছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস এবং ভিটামিন ডি যা শিশুদের দাঁত এবং হাড় গঠনে অত্যান্ত কার্যকারী।

মাশরুমে আছে প্রচুর পরিমাণে ফলিক অ্যাসিড এবং আয়রন ফলে রক্ত শুন্যতা দূর হয়।

এছাড়াও লিঙ্কজাই ৮ নামক এক ধরনের অ্যাসিড থাকে। যা হ্যাপাটাইটিস বি ও জন্ডিসের প্রতিরোধক।

মাশরুমে আছে বেটাডি, গ্লুকেন, লাম্পট্রড, টারপিন অয়েড, ট্রাইটারপিন, এডিনোসিন, ইডুলিন, যা ক্যান্সার ও টিউমার প্রতিরোধ করে। এছাড়াও আমশা রোগে বিশেষ উপকারী।

মাশরুমের ট্রাইটারপিন থাকায় ইহা বর্তমানে এইডস প্রতিরোধক হিসাবে কাজ করে।

মাশরুমের প্রচুর পরিমাণে গ্লাইকজেন থাকায় ইহা শক্তিবর্ধক হিসাবে কাজ করে। তাই যৌন অক্ষম রোগীদের জন্য ইহা শক্তিবর্ধক।

মাশরুমে এডিনোসিন থাকায় রক্ত কণিকায় ভারসাম্য রক্ষা করে। ফলে এটি ডেঙ্গু এবং জ্বরের প্রতিরোধক হিসাবে কাজ করে।

মাশরুমে স্ফিং লিপিড এবং ভিটামিন বি ১২ বেশি থাকায় স্নায়ু তন্ত্র এবং স্পাইনাল কর্ড সুস্থ রাখে। তাই হাইপারটেনশান দূর করে। মেরুদণ্ড দৃঢ় এবং মস্তিষ্ক সুস্থ থাকে

Leave a Reply

Your email address will not be published.