অ্যাজমা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। পুঁই শাকের অসাধারন কিছু উপকারিতা

. ডায়াবেটিস কমতে সাহায্য করে

পুঁই শাকে রয়েছে লিপোইক অ্যাসিড নামক এক ধরণের অ্যান্টি অক্সিডেন্ট যা রক্তে শর্করার মাত্রা কমাতে এবং ইনসুলিনের ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে।এছাড়াও এটি ডায়াবেটিসের ক্ষেত্রে পেরিফেরাল নিউরোপ্যাথি আর অটোনমিক নিউরোপ্যাথি কমায়।তাই   বলাই যায় যে পুঁই শাক ডায়াবেটিস রোগীদের পক্ষে খাওয়ায় ক্ষতিকারক নয়।

. ক্যানসার প্রতিরোধ করে

পুঁই শাক যেহেতু সবুজ সবজির তাই পুঁই শাকে রয়েছে ক্লোরোফিল। আর এই ক্লোরোফিল  কার্সিনোজেনিক প্রভাব প্রতিরোধ করতে বিশেষভাবে সাহায্য করে।কারন এই কার্সিনোজেনিকের প্রভাবেই ক্যানসার হয়।এছাড়াও পুঁই শাকে  থাকা ফাইবার পাকস্থলী এবং কোলন ক্যানসার প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।তাই বলা যায় যে  পুঁই শাক ক্যানসার প্রতিরোধ করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

৩. অ্যাজমা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করেঃ

পুঁই শাকে রয়েছে বিটা ক্যারোটিন যা অ্যাজমা প্রতিরোধ করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

. ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রনে রাখতে সাহায্য করেঃ

পুঁই শাকে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের উপাদান তার মধ্যে অন্যতম হল পটাসিয়ামের । এই পটাশিয়াম ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রনে রাখতে সাহায্য করে।এছাড়াও  পটাশিয়াম শরীরে সোডিয়ামের মাত্রা ঠিক রাখতে সাহায্য করে। তাই পুঁই শাক ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রনে রাখতে বিশেষভাবে সাহায্য করে।

. হাড় শক্ত করে

পুঁই শাকে রয়েছে ভিটামিন কে’ যা আমাদের শরীরের হাড় শক্ত করতে সাহায্য করে।ভিটামিন কে’ আমাদের শরীরে হাড়কে মজবুত রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে যেমন- হাড়ের মেট্রিক্স প্রোটিন উন্নত করে, ক্যালসিয়াম ধারণ ক্ষমতা বাড়ায় ইত্যাদি।এছাড়াও ইউরিনে ক্যালসিয়ামের মাত্রাও কম করে।

. হজমের ক্ষমতা বাড়ায়

আজকের দিনে বেশিভাগ মানুষই তাদের খাদ্যাভাসের জন্য পেটে সমস্যায় ভোগেন।তাই এই সমস্যা সমাধানে জন্য পুঁই শাক খুবই উপকারি।কারন পুঁই শাকে রয়েছে ফাইবার যা হজম ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে এবং  শরীর থেকে বর্জ্য পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করে।যার ফলে বদ-হজম , গ্যাস-অম্বল এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের  মতো সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.