প্রথম দেহরক্ষী কে ছিলেন মহাত্মা গান্ধির?

নিউজ ডেস্কঃ ভারতবর্ষকে স্বাধীন করার জন্যে অনেক বীরযোদ্ধারাই এগিয়ে এসেছিলেন।এবং দেশের  জন্য শহিদও হয়েছেন।তাই তাদের কৃতিত্ব তো ভাষায় প্রকাশ করা যায় না।অনেক বীরযোদ্ধা দেশের জন্য শহিদ হয়ে অমর হয়েছেন আবার অনেক বীরযোদ্ধা দেশের যুদ্ধে শহিদ না হয়েও অমর হয়ে রয়েছে মানুষের হৃদয়ে।আর এই বীরযোদ্ধাদের মধ্যে একজন হলেন গান্ধীজী যিনি দেশের জন্য রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ না করলেও তার দেশের প্রতি অবদান কিছু কম নয়।তিনি অহিংস আন্দোলনের মাধ্যমে তার দেশের জন্য যুদ্ধ চালিয়ে গিয়েছিলেন।আর এইসব কাজ গান্ধীজী অমর করে রেখেছেন আমাদের হৃদয়ে।গান্ধীজীর কৃতকর্মের কথা তো সবাই জানেন কিন্তু আমদের জাতির জনক গান্ধীজীর স্বাধীন ভারতে  সর্বপ্রথম বাঙালি দেহরক্ষী কে ছিলেন যিনি ১৯৪৭ সালে কলকাতার দাঙ্গার সময় সর্বক্ষণ রক্ষা করে রেখেছিলেন গান্ধীজীকে।

স্বাধীন ভারতে গান্ধিজির সর্বপ্রথম বাঙালি দেহরক্ষী ছিলেন হেমন্ত সেনগুপ্তকে। তিনি ছিলেন একজন বাঙালি দেহরক্ষী।যখন কলকাতার দাঙ্গার দাঙ্গা হচ্ছিল৷ তখন গান্ধিজিকে ঘিরে নিরাপত্তা বলয় তৈরি করেছিল ক্যালকাটা পুলিশ৷এবং তখন দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল হেমন্ত সেনগুপ্তকে৷যিনি অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার বলে সর্বক্ষণ গান্ধীজীর পাশে পাশে থাকতেন৷ এই দাঙ্গার জন্য ১৩ আগস্ট থেকে ৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অর্থাৎ  ২৫ দিন কলকাতায় গান্ধিজির নিরাপত্তার ভার ছিল এই বাঙালি দেহরক্ষীর উপর৷ হায়দারি মঞ্জিল থেকে প্রার্থনাসভা, প্রাক-স্বাধীন ও স্বাধীনত্তোর ভারতে  ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত অফিসার এবং গান্ধীজীর ছায়াসঙ্গী ছিলেন স্বাধীন ভারতের প্রথম বাঙালি দেহরক্ষী হেমন্ত সেনগুপ্ত৷

Leave a Reply

Your email address will not be published.