মাত্র ১৮ মিনিটে বক্তৃতাতেই বাংলাদেশের মুক্তি যোদ্ধাদের উদ্বুদ্ধ করে দিয়েছিলেন। কি এমন বলেছিলেন শেখ মুজিবর রহমান?

পৃথিবীর অনেক রাজনৈতিক ও সামাজিক নেতা, রাষ্ট্রনায়ক ও সামরিক জান্তা এমন কিছু ভাষণ দিয়েছেন যা তাদের ইতিহাসের অংশে পরিণত করেছে। আবার এমন কিছু ভাষণ আছে যা মানুষকে জীবন বিলিয়ে অধিকার আদায়ে উজ্জীবিত করেছে। ফলে পরিবর্তিত হয়েছে ইতিহাসের গতিধারা। তিনি হলেন বাংলাদেশের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ।

সৃষ্টির পর থেকে ধাপে ধাপে বদলে গেছে পৃথিবী। আবার ইতিহাসই সাক্ষ্য দেয়, পৃথিবীর বড় বড় বেশকিছু পরিবর্তনের নেপথ্যে রয়েছে এক বা একাধিক ভাষণ, কারণ বিশ্বে বিশেষ ক্ষেত্রে এমন ভাষণ কিংবা ভাষণে উচ্চারিত প্রতিটি শব্দ যেন হয়ে ওঠে এক একটি মারণাস্ত্র কিংবা শক্তিশালী বোমার চেয়েও শক্তিধর কিংবা ভয়ঙ্কর। তাই এ ভাষণগুলোই পেরেছে ইতিহাসের গতি পাল্টে দিতে।

১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ তিনি ঢাকার তৎকালীন রেসকোর্স ময়দান (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে) মুক্তিকামী লাখো বাঙালি আর দেশ-বিদেশের শতাধিক গণমাধ্যমকর্মীর উপস্থিতিতে এক অভূতপূর্ব ভাষণ দেন। মাত্র  ১৮ মিনিটের এই ভাষণ কোনো কাগজ বা নোটের সাহায্য ছাড়াই স্বতঃস্ফূর্তভাবে উচ্চারণ করেন জাতির পিতা। শব্দের বুনন, প্রাণের আবেগ আর দরাজ গলায় বর্ষিত এ ভাষণ যেন বুলেটের মতো বুকে প্রবেশ করে উজ্জীবিত করে সমগ্র বাঙালি জাতিকে। আর রকেট শেলের মতো বিদীর্ণ করে স্বৈরাচারী পাকিস্তানি শাসকদের হৃৎপিন্ড।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার কথা বলতে গিয়ে বারবার তার জীবনে নেমে এসেছে জেল, জুলুম আর হুমকি। এরই মাঝে অতি সাধারণ এক বাঙালি পরিবার আর প্রিয়তমা স্ত্রী ফজিলাতুন্নেছা ছিলেন তার অনুপ্রেরণার উৎস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *