লিওনেল মেসি= বার্সেলোনা? আরও একবার প্রমান করলেন স্বয়ং এল এম টেন।

স্পোর্টস ডেস্কঃ সেভিয়ার বিরুদ্ধে ২-৪ গোলে জয় বার্সেলোনার। জয়ের নেপথ্যে লিওনেল মেসি। বার্সাকে জয় এনে দেওয়ার পাশাপাশি এদিন হ্যাটট্রিকও করলেন এল এম টেন। প্রথমার্ধে খেলা শুরু হওয়ার পর দু দলের মধ্যেই লড়াইটা ছিল হাড্ডাহাড্ডি। বল দখলের লড়াইয়ে বার্সেলোনা এগিয়ে থাকলেও সেভিয়ার কাউন্টার আট্যাকের ফলে বার্সার ডিফেন্সকে বেশ ভুগতে হয়। সেভিয়ার ডিফেন্সে মেসির মিস পাস থেকে বল নিয়ে কাউন্টার আট্যাকে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন নাভাস। ম্যাচের বয়েস তখন মাত্র ২২ মিনিট। ঠিক তার ৪ মিনিট পর রাকিতিচের পাসে দুরন্ত শর্টে খেলায় সমতা ফেরান লিওনেল মেসি। এই গোলকে এই মরশুমের সেরা গোল বলছেন অনেক ফুটবল বিশেষজ্ঞই। মেসি গোল করার ১৬ মিনিট পর গ্যাব্রিয়ালো মারকাদোরের গোলে এগিয়ে যায় সেভিয়া। প্রথমার্ধে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে থাকে সেভিয়া।

দ্বিতীয়ার্ধে খেলার শুরু থেকেই ম্যাচের প্রাধান্য ছিল বার্সেলোনার। ৬৭ মিনিটে আবারও দুরন্ত শর্টে গোল করে খেলায় সমতা ফেরান এল এম টেন। এরপর একাধিক বল আছড়ে পড়ে সেভিয়ার বক্সে। ওয়ান ইস টু ওয়ানে গোল মিস করেন পিকে এবং সুয়ারেজ। ৮৫ মিনিটে সেভিয়া গোলকিপারকে বোকা বানিয়ে গোল করে নিজের হ্যাটট্রিকের পাশাপাশি দলকে জয়ের পথ দেখান তিনি। অতিরিক্ত সময়ে মেসির দুরন্ত পাস থেকে সোজা গোল করেন লুইস সুয়ারেজ।

প্রথমার্ধ থেকে দ্বিতীয়ার্ধ। ডিফেন্স থেকে শুরু করে ফরওয়ার্ড লাইন পর্যন্ত মেসি দৌড়াত্ত্ব্য অব্যাহত। এদিন ম্যাচে আরও একবার প্রমান করলেন তিনি যে পুরো বার্সা দলটাকে একাই দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে টানছেন। তবে সুয়ারেজের পারফর্মেন্সে খুশি নয় একাধিক প্লেয়ার সহ ক্লাব কতৃপক্ষ। ফলে এই মরুশুমে তাঁকে ছেড়ে দেওয়ার যে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে তা সত্যি হলেও হতে পারে। তবে বার্সেলোনার একাধিক প্রাক্তন তারকারা যা বলছেন যে মেসি বার্সেলোনা মানেই মেসি। এবং মেসিকে ছাড়লে বার্সাকে অগুন্তি ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। তা আরও একবার প্রমান করলেন স্বয়ং এল এম টেন। ২৫ ম্যাচে ৫৭ পয়েন্ট নিয়ে লিগ তালিকার শীর্ষে নিজেদের স্থান বজায় রাখল বার্সেলোনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *