গ্যাস, অম্বল এবং স্তনের দুধ বাড়ানো থেকে শুরু করে দাদ, চর্ম রোগে পেঁপের ব্যবহার

এ এন নিউজ ডেস্কঃ মাছে ভাতে বাঙালি। দুপুরবেলা খেতে বসে পাতে একটুকরো মাছ চায়ই বাঙালির। আর এই অভ্যাসের এক বড় কারন হল ১২ মাসই মাছ পাওয়া যায়। আর আজকাল বাঙালি থেকে শুরু করে আপামর জনসাধারন শরীর ঠিক রাখতে নিজের খাদ্দ্যাভাসের মধ্যে বিভিন্ন শাকসবজি খাওয়া শুরু করেছে। ঠিক সেরকমই এক সবজি বা আনাজ হল পেঁপে। আর পেঁপের তরকারি সারা বছর ধরে খাওয়া যেতে পারে। এবং পেঁপের গুনাগুন শরীরের বিভিন্ন রোগের পক্ষে বিশেষ উপকারি।

প্রতিদিন দুপুরে ভাত খাওয়ার পর এবং রাত্রে রুটি খাওয়ার পর এক টুকরো কাঁচা পেপে ভালো করে চিবিয়ে খেয়ে এক গ্লাস জল খেলে সকালে পেট পরিস্কার হওয়ার পাশাপাশি অম্বল এবং বদ হজমের কষ্ট দূর হয়।

১০ ফোঁটা করে কাঁচা পেপের দুধ বা আঠা প্রতিদিন অল্প জলে মিশিয়ে খেলে দাদ এবং চর্ম রোগ সারার পাশাপাশি কৃমি নাশ হয়।

২০/২৫ ফোঁটা কাঁচা পেপের আঠা অল্প চিনির সঙ্গে মিশিয়ে কিছুদিন নিয়ম করে খেলে প্লিহা রোগ সারে ও পেটের ভেতর টিউমার এবং বায়ু রোগে খুবই উপকার পাওয়া যায়।

দুই চা চামচ কাঁচা পেঁপের আঠা ২ চা চামচ চিনি মিশিয়ে নিয়মিত খেলে পিলের আয়তন ক্রমশ কমে  যায়।

দুই চা চামচ পেঁপের আঠায় ১ চা চামচ করে চিনি মিশিয়ে দুধের সঙ্গে খেলে অম্বল এবং অজীর্ণ রোগে বিশেষ উপকার পাওয়া যায়।

যেসব মায়েদের সদ্য বাচ্চা হয়েছে কাঁচা পেঁপের তরকারি নিয়মিত খেলে তাদের স্তনের দুধ বাড়বে।

কাঁচা পেঁপে বা পেঁপে গাছের আঠা পুরনো অজীর্ণ রোগে, পেটের অসুখে(অতিসার), পুরনো পেটের অসুখে(কোষ্ঠবদ্ধতা) প্রভৃতি রোগের পক্ষে খুবই উপকারি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *